• ঢাকা বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১
logo

গভীর রাতে পানিবন্দিদের বাড়িতে খাদ্য পৌঁছে দিলেন সংসদ সদস্য

পঞ্চগড় প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ০৭ জুলাই ২০২৪, ২২:৪৩
গভীর রাতে পানিবন্দিদের বাড়িতে খাদ্য পৌঁছে দিলেন সংসদ সদস্য
ছবি : আরটিভি

গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে পঞ্চগড়ের পৌরসভায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন বেশ কিছু পরিবার। সেই পরিবারের সদস্যরা যাতে খাদ্য সংকটে না পড়েন সেজন্য, পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া গভীর রাতে জলাবদ্ধ এলাকা পরিদর্শন করে খাদ্য সহায়তা নিয়ে ভুক্তভোগীদের হাতে তুলে দিয়েছেন।

শনিবার (৬ জুলাই) রাত ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত পৌরসভার কামাতপাড়া, জালাসী হঠাৎ পাড়া, তেলিপাড়া, ট্রাক টার্মিনাল এলাকা পরিদর্শন করে এ খাদ্যসহায়তা দেন তিনি।

স্থানীয়রা জানান, প্রথমে পঞ্চগড় শহড়ের উপকণ্ঠে কামাতপাড়া গ্রামে জলাবদ্ধ সড়ক দিয়ে হেটে বাড়িতে বাড়িতে খোঁজ নিয়ে খাবার পৌঁছে দেন সংসদ সদস্য নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া। পরে জালাসি এলাকার হঠাৎপাড়া গ্রামে খাবার বিতরণ শেষে তেলিপাড়া এলাকায় গিয়ে বন্ধ থাকা কালভার্টের মুখ খুলে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেন। এ সময় সংসদ সদস্য পানিবন্দি মানুষের ভোগান্তি লাঘবে পানি নিষ্কাশনের জন্য স্থায়ী সমাধান হিসেবে মাস্টারপ্ল্যান করে ড্রেন নির্মাণসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেন। এ সময় সংসদ সদস্যকে দেখে আবেগে আপ্লুত হয় পানিবন্দি থাকা পরিবারের লোকজন।

পরে তিনি পৌরসভার এসব এলাকার ৫ শতাধিক মানুষের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেন। শুকনো খাবার হিসেবে এক কেজি করে মুড়ি, চিড়া ও হাফ কেজি গুড় পানিবন্দি মানুষের হাতে তুলে দেন সংসদ সদস্য নাইমুজ্জামান ভূঁইয়া মুক্তা।

এ সময় তার স্ত্রী মেজর (অব.) কাজী মৌসুমি, পঞ্চগড় পৌরসভার মেয়র জাকিয়া খাতুন, সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাকির হোসেন, পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাসানাত মো. হামিদুর রহমান, ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সাইদুর রহমান, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম হুমায়ূন কবীর উজ্জ্বলসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পঞ্চগড় পৌরসভার জলবদ্ধতা নিরসনে স্থায়ী সমাধান হিসেবে এ সংসদ সদস্যের কোন পরিকল্পনা আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে নাঈমুজ্জামান ভূঁইয়া মুক্তা বলেন, ‘অস্বাভাবিক বৃষ্টিপাতে দেশের যে কোনো শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হতে পারে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে কারও হাত নেই। সৌদি আরবসহ বিশ্বের অনেক উন্নত দেশও জলাবদ্ধ হয়েছে। আমরা মেয়রসহ একসঙ্গে কাজ করে যাচ্ছি। ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য আমরা আজকে ভোগান্তিতে পড়েছি। অতীতে আমাদের মেয়রেরা দূরদর্শী কোনো পরিকল্পনা নেননি। তাছাড়া চিকন ড্রেনেজ ব্যবস্থা আর নাগরিকের অসচেতনতায় যত্রতত্র ময়লা ফেলার কারণে সামান্য বৃষ্টিতে সাময়িক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। পানি দ্রুত সরে যেতে পারছেননা। তবে সবচেয়ে আশীর্বাদ হলো করতোয়া নদী আমাদের কাছে। আমরা ভাল ড্রেনেজ ব্যবস্থা করে পানি নদীতে ফেলতে পারলে জলাবদ্ধতা হবেনা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সরকার সব সময় মানুষের পাশে আছে। এই যে বৃষ্টি হচ্ছে মধ্যরাত হলেও আমরা মানুষের পাশে এসেছি। যারা দুর্গত মানুষ তাদের পাশে আমি শেখ হাসিনার বার্তা নিয়ে এসেছি। আমরা এটুকু কথা দিতে পারি, এবারের জলাবদ্ধতা যে ড্রেনেজ ব্যবস্থার কারণে হয়েছে, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে একটা প্রকল্প শুরু হবে। এর বাইরেও আমরা একটা মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করছি, আগামী এক বছরের মধ্যে এই জলাবদ্ধতা নিরসনে একটা স্থায়ী সমাধান হবে।’

মন্তব্য করুন

  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
ট্রাকচাপায় প্রাণ গেল নারীর
২২ দিন পর কুড়িয়ে পাওয়া মর্টার শেল ধ্বংস করল সেনাবাহিনী
দেশের সকল হাসপাতালকে স্বাবলম্বী করতে চান স্বাস্থ্যমন্ত্রী 
মাছ ধরতে নেমে নিখোঁজ আনসার কমান্ডার, ৪২ ঘণ্টা পর মরদেহ উদ্ধার