• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১
logo

মেয়াদ শেষ হলেও ভোগান্তি ও সেতু নির্মাণ শেষ হয়নি

মো. ফরিদ রায়হান, অষ্টগ্রাম প্রতিনিধি

  ১৪ জুন ২০২৪, ১৩:১৫
ছবি : আরটিভি

কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার ঘোড়াউত্রা নদী পারাপারে মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। ৪৩ কোটি ৩৭ লাখ ৮১ হাজার টাকা ব্যয়ে ৩৬২ মিটার গার্ডার সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০২১ সালের ১৬ জানুয়ারি। তখন সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক।

চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি কাজ শেষে সেতুটি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করার কথা ছিল; কিন্তু চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর আরও পাঁচ মাস পার হলেও শেষ হয়নি নির্মাণকাজ। এতে ভোগান্তিকে সঙ্গী করেই নদী পারাপার হতে হচ্ছে স্থানীয়দের। দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্মাণকাজ শেষ করে সেতুটি খুলে দেওয়ার দাবি স্থানীয়দের।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার কাজীপাড়া, মইষারকান্দিসহ কয়েকটি গ্রামের মানুষকে নানা প্রয়োজনে উপজেলা সদরে যেতে ঘোড়াউত্রা নদী পার হতে হয়। এ ছাড়া মিঠামইন কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্রসহ বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদেরও নদী পেরিয়ে যাতায়াত করতে হয়। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাদের। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে ও রাতে নদী পারাপারে দুর্ভোগ কয়েক গুণ বেড়ে যায়। এর প্রেক্ষিতে সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয় এলজিইডি।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, পল্লি সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের অধীনে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এম এম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড ও মেসার্স মমিনুল হক (জেবি) নির্মাণকাজ শুরু করে। চুক্তি অনুযায়ী চলতি বছরের ১৬ জানুয়ারি সেতুটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ঠিকাদারের গাফিলতিতে চুক্তির মেয়াদ শেষের পাঁচ মাস পরও শেষ হয়নি সেতুর নির্মাণকাজ।

বুধবার সরেজমিনে দেখা গেছে, সেতুটির খৈলাপাড়া প্রান্তে চলছে সংযোগ সড়ক পাকা করার কাজ। কাজীপাড়া প্রান্তে চলছিল সেতুর গার্ডার ও রেলিং পিলারে ঢালাইয়ের কাজ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, পরিবেশ অনুকূলে থাকলে আগামী ডিসেম্বর মাসে নির্মাণকাজ শেষ হবে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স মমিনুল হকের পক্ষে সাব-কন্ট্রাক্টর মোহাম্মদ বাবুল বলেন, করোনার সময় কাজ শুরু হয়েছিল, তাই ঠিকমতো শ্রমিক পাওয়া যায়নি। ফলে কিছুটা সময় লেগেছে। আমরা চেষ্টা করছি ডিসেম্বর নাগাদ কাজ শেষ করার।

প্রকল্পের ম্যানেজার আজিজুল ইসলাম বলেন, সেতুর একটি গার্ডার ও দুটি স্ল্যাব ঢালাই বাকি রয়েছে। আশা করছি আগামী জুলাই মাসে ঢালাইয়ের কাজ শেষ হবে। অন্যান্য কাজ শেষে ডিসেম্বরের আগেই সেতুটি হস্তান্তর করা যাবে।

মিঠামইন উপজেলা প্রকৌশলী ফয়জুর রাজ্জাক দাবি করেন, জমি অধিগ্রহণ ও শ্রমিক সংকটের কারণে সেতু নির্মাণে কিছুটা সময় লেগেছে। ইতোমধ্যে মূল সেতুর ৯৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আশা করছি জুলাই মাসের শেষ নাগাদ ব্যবহারের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করা যাবে।

মন্তব্য করুন

  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
২৭ ঘণ্টা পর নিখোঁজ পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার
সড়কে ঘুরতে গিয়ে বাইকের ধাক্কায় প্রাণ গেল শিশুর
ভুট্টাখেতে মিলল প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ
মিঠামইন হাওরে গোসল করতে গিয়ে পর্যটক নিখোঁজ