• ঢাকা বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১
logo

পণ্যবাহী গাড়িতে অবৈধভাবে পণ্য পাচার, সংকটে বুড়িমারী স্থলবন্দর 

স্টাফ রিপোর্টার (লালমনিরহাট), আরটিভি নিউজ

  ০৯ জুন ২০২৪, ২৩:৩২
পণ্যবাহী গাড়িতে অবৈধভাবে পণ্য পাচার, সংকটে বুড়িমারী স্থলবন্দর 
ছবি : আরটিভি

লালমনিরহাটের পাটগ্রামের বুড়িমারী স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশন দিয়ে আমদানিকৃত পণ্যের গাড়িতে সম্প্রতি একের পর এক অবৈধভাবে কোটি টাকার পণ্য পাচার করে আনা হচ্ছে। এতে জড়িত ভারত-বাংলাদেশের অসাধু কয়েকজন ব্যবসায়ী। তাদের দৌরাত্ম্যে নানামুখী সংকটে পড়েছে এ স্থল শুল্ক স্টেশন ও বন্দরটি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ভারত ও ভুটান থেকে অধিক হারে পাথর আমদানি করা হয়। প্রতিদিন প্রায় ৪০০-৬০০ গাড়িতে পাথর ও অন্যান্য পণ্য আমদানি ও রপ্তানি করা হয়। ঋণপত্র (এলসি) অনুযায়ী এসব গাড়িতে আনা পণ্যের সঠিকতা যাচাই করা হয় অনুমান করে। গুরুত্বপূর্ণ এ শুল্ক স্টেশনে ‘পণ্য স্ক্যানার’ না থাকার সুবাদে অসাধু ব্যবসায়ীরা আমদানি করা পণ্যের গাড়ির ভেতরে ভারতীয় শাড়ি, থ্রিপিস, কসমেটিকস্, গয়না, চিকিৎসা সামগ্রী পাচার করে আনছে।

গত ১২ মার্চ ১৮৮১২৪০১০০০১ নম্বর এলসি অনুযায়ী ভারতের কলকাতার রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান ‘অভিক অ্যান্ড সন্সের’ নিকট ১৮ টন চায়না ‘ক্লে পাউডার’ আমদানির অর্ডার করেন ঢাকার মেসার্স নূর এন্টারপ্রাইজ। পণ্যগুলো ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে গত ৬ মে ভারতীয় ট্রাকে বুড়িমারীতে আনা হয়। পণ্যগুলো যাচাই করে আমদানিকারকের প্রতিনিধিকে বুঝিয়ে দেয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। দীর্ঘদিনেও পণ্য বুঝে না পেয়ে পাটগ্রাম থানা ও গাজীপুরের টঙ্গী থানায় মামলা করেন আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান।

এতে গাজীপুর ডিবি পুলিশের একটি দল মামলার আসামি বুড়িমারী ইউনিয়নের তুহিনুজ্জামান বাবু ও মনোয়ার হোসেনকে আটক করে এবং ২০ দিন পর হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা ইউনিয়নের একটি বাড়ি থেকে ক্লে পাউডারগুলো উদ্ধার করে। এ সময় উদ্ধারকৃত পাউডারের ভেতর অবৈধভাবে থেকে আনা ১০ কার্টন সিটি গোল্ডের বিভিন্ন গহনা, সিরিঞ্জ, কেনুলার কার্টন ৩০টি ও অন্যান্য পণ্য বের হয়। এসব পণ্যের মূল্য প্রায় কোটি টাকা। একইভাবে গত ২০২৩ সালের ২৭ মার্চ ও এ বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি পাথরবোঝাই ট্রাকে অবৈধভাবে আনা হয় কয়েক কোটি টাকার নানা পণ্য।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আমদানি-রপ্তানিকারক দাবি করেন, ভারত-বাংলাদেশের একটি কুচক্রী মহল বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ব্যবসায়ী প্রতিহিংসায় নানা ধরনের ষড়যন্ত্র করে সংকট সৃষ্টির চেষ্টা করছে। এতে শত শত আমদানি-রপ্তানিকারক চিন্তিত।

বুড়িমারী স্থলবন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুজ্জামান সায়েদ বলেন, একটি চক্র পাথর আমদানির নামে ভারত থেকে শাড়ি ও থ্রিপিস কাপড়, সুগন্ধি ক্যামিক্যাল, কসমেটিকস, চিকিৎসা সামগ্রীসহ নানা পণ্য অবৈধভাবে নিয়ে আসছে। অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি।

এ ব্যাপারে বুড়িমারী স্থল শুল্ক স্টেশনের (কাস্টমস) সহকারী কমিশনার (এসি) নাজমুল হাসান বলেন, বুড়িমারী কাস্টমসে দায়িত্বরত সবাই কয়েকধাপে পণ্য আমদানি ও রপ্তানির গাড়িসমূহ চেক করে। কোনো গাড়ি সন্দেহ হলে খালি করে দেখা হয়। কোনো ব্যবসায়ী অবৈধভাবে কোনো মালামাল আনলে ও ধরা পড়লে কাস্টমস আইনে তার লাইসেন্স বাতিল করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়। গাড়িসহ পণ্য স্ক্যান করতে ‘স্ক্যানার’ বসাতে রংপুর কমিশনারের মাধ্যমে এনবিআরে চিঠি ও প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
তিস্তার পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই, বন্যার আশঙ্কা
কালীগঞ্জে বজ্রপাতে ৫ গবাদিপশুর মৃত্যু, ঘর পুড়ে ছাই
রাত থেকে বন্ধ হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রেন চলাচল
ঈদে ৭ দিন বন্ধ থাকবে বুড়িমারী স্থলবন্দর