• ঢাকা রোববার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১
logo

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: কক্সবাজারে ১০ গ্রাম প্লাবিত

কক্সবাজার প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ২৬ মে ২০২৪, ২২:২৯
কক্সবাজারে ১০ গ্রাম প্লাবিত, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা
ছবি : সংগৃহীত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘুর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে পাঁচ থেকে ছয় ফুট উচ্চতায় জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। কক্সবাজার সদরের কুতুবদিয়াপাড়া, সমিতিপাড়া, মহেশখালী উপজেলার সিকদারপাড়াসহ জেলার অন্তত ১০টি গ্রামে জোয়ারের পানি ঢুকেছে। জোয়ারের পানিতে গ্রামীণ সড়ক ও বাড়িঘর প্লাবিত হয়েছে।

রোববার (২৬ মে) রাতে উপকূল এলাকায় পানি বৃদ্ধি পেয়ে জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কক্সবাজার পৌরসভা, মহেশখালী, পেকুয়া ও কুতুবদিয়ার বিভিন্ন সাইক্লোন শেল্টারে রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত ১০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্রিত লোকজনকে শুকনো খাবার দেওয়া হচ্ছে।

এ দিকে সেন্টমার্টিন দ্বীপে বৃদ্ধি পেয়েছে বাতাসের গতিবেগ। দ্বীপের বাসিন্দাদের নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে। জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দ্বীপটির কিছু কিছু এলাকায় বাড়িঘরে পানি ঢুকেছে।

পাশাপাশি সমুদ্রসৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের নিরাপদে থাকতে বলা হয়েছে। সৈকতে জেলা প্রশাসনের নিয়োজিত বিচকর্মী, ফায়ার সার্ভিস ও লাইফ গার্ডকর্মীরা পর্যটকদের সতর্কতা জারি করে মাইকিং করেছে। সৈকতে পর্যটকদের গোসল করতে নিষেধ করা হচ্ছে। কক্সবাজার বিমানবন্দরে রোববার সকাল থেকে সবধরনের বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ ছাড়া কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ রোডের বেশ কয়েকটি পয়েন্টে গাছ ভেঙে পড়ায় সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক শাহীন ইমরান বলেন, ‘জেলার কুতুবদিয়া, মহেশখালী, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দরসহ উপকূল ও নিম্নাঞ্চলে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য স্বেচ্ছাসেবকরা মাইকিং করছে। ঘূর্ণিঝড় রেমালের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় কক্সবাজারে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে জেলা প্রশাসন।’

মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
৭ দিন পর টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌযান চলাচল শুরু
সেন্টমার্টিন থেকে ট্রলারে ফিরছেন দুই শতাধিক মানুষ
বিকল্প পথে সেন্টমার্টিনে পাঠানো হবে পণ্য, যাতায়াত করবে মানুষও
একসঙ্গে ৩ সন্তানের জন্ম দিলেন তসলিমা