• ঢাকা বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

শিক্ষকের বাসায় চুরি, ফিটনেস প্রশিক্ষক ও ইয়াবা বিক্রেতা গ্রেপ্তার

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১৬ মে ২০২৪, ১৮:১৪
ছবি : সংগৃহীত

চট্টগ্রাম নগরীতে এক স্কুলশিক্ষকের বাসায় চুরির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজনের বাসা থেকে চুরি করা মালামালের সঙ্গে মিলেছে ইয়াবা।

পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তার একজন শরীরচর্চায় বিশেষ পারদর্শী ও ফিটনেস প্রশিক্ষক। অপরজন চুরির পাশাপাশি ইয়াবার ব্যবসা করেন।

বুধবার (১৫ মে) রাতে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে চান্দগাঁও থানা পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তার দুইজন হলেন- আব্দুল্লাহ আল হৃদয় ওরফে রিফাত (২২) এবং কামাল হোসাইন মুন্না (২৩)। তাদের বাড়ি কক্সবাজার জেলায়। উভয়েই থাকেন বায়েজিদ বোস্তামি থানা এলাকায়।

চান্দগাঁও থানা পুলিশ জানায়, গত ১৯ মার্চ চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার এ-ব্লকের এক নম্বর সড়কে স্কুলশিক্ষক শর্মিষ্ঠা বড়ুয়ার বাসায় দরজার তালা কেটে চুরির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলা তদন্তে নেমে পুলিশ সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে রবিন নামে এক যুবককে শনাক্ত করে গত ১৯ এপ্রিল তাকে গ্রেপ্তার করে। রবিন চুরির দায় স্বীকার করেন আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে হৃদয় ও মুন্নার নাম প্রকাশ করেন।

এরপর বুধবার সন্ধ্যায় নগরীর সিআরবি এলাকা থেকে হৃদয় এবং চান্দগাঁও মেহেরজান ঘাটা এলাকা থেকে মুন্নাকে গ্রেপ্তার করে। তাদের দেয়া তথ্যে নগরীর বালুচড়া এলাকায় মুন্নার বাসা থেকে দুই মাস আগে চুরি করা প্রায় এক ভরি ওজনের একটি সোনার বার ও চুরির কাজে ব্যবহার করা বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ। তার বাসায় ৫০০ পিস ইয়াবাও পাওয়া যায়।

অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া চান্দগাঁও থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোমিনুল হাসান বলেন, রবিন, হৃদয় ও মুন্না পরস্পর বন্ধুস্থানীয়। তারা ভবঘুরে প্রকৃতির। তিনজনকে দেখে বোঝার কোনো উপায় নেই যে তারা চুরির সঙ্গে জড়িত। মুন্নার বিরুদ্ধে আরও একাধিক চুরির মামলা আছে। মাদক আইনেও চান্দগাঁও থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা আছে।

হৃদয় নিয়মিত জিম করে। বিভিন্ন জিম সেন্টারে সে ট্রেইনার হিসেবে কাজ করে। গত মাসে সে ভারতে শরীরচর্চার একটি আন্তর্জাতিক আসরে অংশ নিয়ে স্বর্ণপদক লাভ করে বলে জানিয়েছে। দেশে ফিরে সেই স্বর্ণপদক বিক্রি করে দেয়। সে প্রাইভেটকার ভাড়া করে চলাফেরা করে। সঙ্গে থাকে মুন্না ও রবিন। হৃদয় আবার গানবাজনাও করে। তারা নিয়মিত ইয়াবাও সেবন করে। মুন্না ইয়াবার ‍খুচরা বিক্রেতা। ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মাদক আইনেও মামলা দায়ের হয়েছে।

হৃদয় ও মুন্নাকে চুরির মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন এই পুলিশ উপপরিদর্শক।

মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
ফিক্সিংয়ের সন্দেহে মালিক গ্রেপ্তার, মোস্তাফিজের দলের চুক্তি বাতিল
নোয়াখালীতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৪ ডাকাত গ্রেপ্তার
এমপি আনার হত্যার মূলহোতা গ্রেপ্তার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
ভারতীয় ঋণে হবে চট্টগ্রাম শহরের সড়কবাতির আধুনিকায়ন
X
Fresh