• ঢাকা বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo

দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হাতিয়ার কমলার দিঘি সমুদ্রসৈকত 

হাতিয়া প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:১১
হাতিয়া
ছবি- সংগৃহীত

কেউ চড়ছেন ঘোড়ার পিঠে, কেউ কাটছেন সাঁতার। হাঁটু পানিতে নেমে ছোট শিশুরা করছেন দুরন্তপনা। সঙ্গে থাকা পরিবারের নারী সদস্যরা নদীর তীরে দাড়িয়ে তুলছেন ছবি। সবাই আনন্দে আত্মহারা। তীব্র রোদ কাউকে থামাতে পারেনি। মাঝে মধ্যে কেওড়া বাগানে এসে একটু স্বস্তি নিয়ে আবার যে যার মতো করে আনন্দে মেতে উঠছেন। ঈদ পরবর্তী গত কয়েক দিন ধরে নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার ঐতিহ্যবাহী কমলার দিঘি সমুদ্রসৈকতে একই চিত্র বিরাজ করছে।

হাতিয়ার চরঈশ্বর ইউনিয়নের পূর্বপাশে বেড়িবাঁধের বাহিরে এই সমুদ্রসৈকতের অবস্থান। উপজেলা সদর থেকে পাকা রাস্তায় ৫-৬ কিলোমিটারের দূরত্বে হওয়ায় অনেকে এখানে আসছেন। গণপরিবহন চলাচল না করায় সবাই নিজ নিজ ব্যক্তি মালিকানা গাড়ি নিয়ে এসেছেন এই সমুদ্রসৈকতে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ব্যক্তি মালিকানা সারি সারি গাড়ির বিশাল বহর রাখা কেওড়া বাগানের ফাঁকে ফাঁকে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সবাই এখানে অবস্থান করে অন্ধকার হওয়ার আগেই সবাই যে যার মতো বাড়িতে ফিরে যাচ্ছেন।

নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা চরঈশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম চৌকিদার শঙ্কর চন্দ্র সাহা জানান, ঈদের দিন থেকে এখানে প্রতিদিন মাত্রাতিরিক্ত মানুষের সমাগম হচ্ছে। প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ হাজার মানুষ আসছেন এখানে। বেড়ি থেকে পূর্ব দিকে সরু রাস্তায় চারচাকার গাড়ি এলে যানজট সৃষ্টি হয়। এ জন্য সবাই মোটরসাইকেল নিয়ে আসেন। দুই যুগেরও বেশি সময় এই স্থানে দর্শনার্থীদের পদচারণা থাকলেও এবার সবচেয়ে বেশি মানুষ এখানে আসছেন। নিঝুম দ্বীপসহ হাতিয়ার অন্য বিনোদন কেন্দ্রে যোগাযোগ ব্যবস্থা দুর্বল হওয়ায় মানুষজন এখানে বেশি আসছেন।

ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে ঈদ উদযাপন করতে আসা বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আলাউদ্দিন পরিবার নিয়ে এসেছেন। তিনি জানান, অনেকের কাছে এই কমলার দিঘির গল্প শুনেছেন। সত্যিই দেখার মতো জায়গা এটি। ছোট শিশুরাও আনন্দে আত্মহারা। সহজে নদীতে নামা যায়, কোনো কাদা লাগে না। তীব্র গরমে বনের মধ্যে একটু দাঁড়ালে প্রশান্তি চলে আসে। বিদ্যুতের সরবরাহ নেই। এরপরেও সবাই ক্লান্তিহীন।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আব্দুল শহিদ জানান, গত কয়েক বছর এখানে মানুষজন আসছেন। তবে এবার যে পরিমাণ মানুষ এসেছে, তা বিগত বছরগুলোতে কখনো আসেনি। কিন্তু অতিরিক্ত মানুষের চাপে কিছুটা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হচ্ছে। ঈদের দিন তীব্র যানজট ছিল। বেড়ি থেকে পূর্বদিকে সৈকতের যাওয়ার রাস্তাটি সরু হওয়ায় অনেকে ভিন্ন ভিন্ন পথে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যাওয়া লাগছে।

চরঈশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন জানান, ২০২৩ সালে হরিণের খাওয়ার পানি জোগান দেওয়ার জন্য এখানে একটি দিঘি তৈরি করা হয়। মাটি কাটা এক নারী শ্রমিকের নামানুসারে এর নাম রাখা হয় কমলার দিঘি। এর পাশে বনবিভাগ কেওড়া বাগান ও পরে ঝাউবাগান সৃজন করেন। এতে স্থানটি দর্শনীয় হয়ে ওঠে। গত তিন বছর আগে কেওড়া বাগানের পাশে নদীর কোল ঘেঁষে বিশাল বিচ তৈরি হয়; যা দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে অনেক লোক আসছেন। গত কয়েক বছর সরকারি-বেসরকারি ঊর্ধ্বতন অনেক কর্মকর্তা এখানে আসেন।

তিনি আরও জানান, মানুষের আনাগোনা বেশি দেখে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে রাস্তা তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। পরে কয়েকটি ছাতা ও একটি শৌচাগার নির্মাণ করে দেওয়া হয়। এবার ঈদে মানুষের অতিরিক্ত চাম সামাল দিতে গ্রাম চৌকিদার নিয়োজিত করা হয়। তারা প্রতিদিন ভিন্ন ভিন্ন সময় দায়িত্ব পালন করছেন। তবে ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট অনেক কম হওয়ায় অতি গুরুত্বপূর্ণ কাজও করা যাচ্ছে না। সরকারিভাবে পর্যটন করপোরেশন থেকে লোকজন এসেছেন। তারা একটি পরিকল্পনা হাতে নিলে এই স্থানটি পর্যটন খাতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করবে।

মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
হাতিয়ায় খাদ্যে নেশা দ্রব্য মিশিয়ে অজ্ঞান করে ডাকাতি
সমুদ্র সৈকতে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে হোটেল কর্মচারী নিহত
হাতিয়ায় চেতনানাশক স্প্রে করে ঘর লুট
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসছে বিষধর সাপ