• ঢাকা সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১
logo

‘ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বিএনপি রাজনীতি করে না’

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ৩১ মার্চ ২০২৪, ১৭:৫৫
ছবি : আরটিভি

বিএনপি স্থায়ী কমিটি সদস্য ড. মঈন খান বলেছেন, আজকে আমরা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছি। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য বিএনপি কখনো রাজনীতি করে না। আমরা চাই বাংলাদেশে মানুষের অধিকার ফিরে আসুক, মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে আসুক, মানবাধিকার ফিরে আসুক, নারীর অধিকার ফিরে আসুক, শিশুর অধিকার ফিরে আসুক। এটাই হচ্ছে আমাদের প্রত্যাশা।

রোববার (৩১ মার্চ) বিকেল ৩টায় শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের ধামলই গ্রামের বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান খান হিরার কবর জিয়ারত ও পরিবারের সদস্যদেরকে সমবেদনা জানাতে এসে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ড. মঈন খান বলেন, সরকারকে আমরা অনুরোধ করবো তারা যেন বাংলাদেশের মানুষের যে আকাঙ্ক্ষা এটা যেন উপলদ্ধি করে। এই সরকার মুখে বলে তারা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি। তারা যদি স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হতো তাহলে কেন তারা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। কেন তারা বাংলাদেশে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। কেন তারা বাংলাদেশে বাকশাল কায়েম করেছে। এটা আমাদের কথা নয়। সারা বিশ্ব এখন এ কথা বলে। আজকে সরকারকে বুঝতে হবে ক্ষমতার জোরে, বুলেটের জোরে, বন্ধুকের জোরে, টিয়ার গ্যাস মেরে, গ্রেনেড মেরে হয়তো বিরোধী দলের মুখ স্তব্দ করে রাখার প্রয়াস নেওয়া যেতে পারে। কিন্তু তাদের সেই দুরাশা সফল হবে না।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের গণতান্ত্রীকামী মানুষ সারা জীবন যুদ্ধ করেছে কথা বলার জন্য। আপনারা জানেন ১৫২ সালে আজকে থেকে প্রায় ৭৫ বছর আগে এই বাংলাদেশের মানুষ তাদের মুখের ভাষাকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য বুকের তাজা রক্ত দিয়েছিল। তারা স্বাধীনতা চায়, কথা বলতে চায়, ভোট দিতে চায়, গণতন্ত্র চায়। এই পরিস্থিতিতে আমাদের একটি কথা, একটি মাত্র দাবী এটা হচ্ছে বাংলাদেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে। বিএনপি নিয়মতান্ত্রিক শান্তিপর্ণ আন্দোলনে বিশ্বাসী । আওয়ামী লীগের মতো লগি বৈঠার রাজনীতি বিএনপি করে না। বিএনপি জনগনের জন্য রাজনীতি করে, জনগনের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য রাজনীতি করে। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়। আমরা সেই আন্দোলন করেছি। সারা বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষ আমাদের সেই আন্দোলনে সাড়া দিয়ে এ সরকারকে চলে যেতে বলেছে।

আসাদুজ্জামান হিরা খান (৪৫) গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়নের ধামলই গ্রামের গিয়াস উদ্দিন খানের ছেলে। সে কাওরাইদ ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন এবং কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার ২-এ বন্দি থাকা অবস্থায় মারা যায়।

এ সময় বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহস্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, গাজীপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শাহ রিয়াজুল হান্নান ও শ্রীপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আক্তারুল আলম মাস্টার, সাবেক সভাপতি উসিরাজ উদ্দিন কাইয়া, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. শফিকুল ইসলাম আকন্দ, আব্দুল মোতালেব, শ্রীপুর পৌর সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন বেপারি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
আবারও রাজপথে মুখোমুখি হচ্ছে আ.লীগ-বিএনপি
২ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি
ঘোড়াঘাটের পৌর মেয়রসহ বিএনপির ৪ নেতাকর্মী কারাগারে
‘নেতিবাচক কর্মকাণ্ডের কারণে বিএনপির প্রতি জনগণের আগ্রহ নেই’
X
Fresh