• ঢাকা রোববার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১
logo

কালীগঞ্জে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ৩০ মার্চ ২০২৪, ১৭:১১
ছবি : আরটিভি

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে দারুস শেফা প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে লাভলী বেগম (২৬) নামে এক প্রসূতি মা ভুল চিকিৎসায় মারা যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। লাভলী বেগম কালীগঞ্জ পৌরসভাধীন বলিদাপাড়ার বাসিন্দা। স্বামী এনামুল কবিরের চাকরির সুবাধে কালীগঞ্জে বসবাস করেন। তাদের গ্রামের বাড়ি জেলার হরিণাকুন্ডু উপজেলার তৈলটুপি।

শনিবার (৩০ মার্চ) বেলা ৩টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইসরাত জাহানের নেতৃত্বে ক্লিনিকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এ সময় ক্লিনিকের মালিক ডাক্তার জহুরুল ইসলামকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও ওটিসিলগালা করে দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কালীগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন ও কালীগঞ্জ থানার পুলিশ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লাভলী বেগম দ্বিতীয়বারের মতো সন্তান জন্ম দিতে ২৯ মার্চ সকালে কালীগঞ্জ শহরের কালীবাড়ি মোড় এলাকার দারুস শেফা প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভর্তি হন। সেখানে বিকেল ৪ টার দিকে তার শরীরে অস্ত্রোপচার করেন ডাক্তার রেক্সোনা পারভীন। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে লাভলী বেগম কন্যা সন্তানের জন্ম দেন কিন্তু তার শরীর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে। রক্ত বন্ধ না হওয়ায় লাভলী বেগমকে নেওয়া হয় অপারেশন থিয়েটারে। রাত ৮ টা পর্যন্ত রোগীকে দ্বিতীয় অপারেশনের কথা বলে অপারেশন থিয়েটারেই রাখা হয়। স্বজনরা এ সময় রোগীর অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে অপারেশন থিয়েটারের ভেতর থেকে বার বার জানানো হয় রোগী ভালো আছে। সেলাই শেষ করেই তাকে বেডে দেওয়া হবে। দীর্ঘ সময় পার হলেও রোগীকে অপারেশন থিয়েটার থেকে বের না করাই স্বজনদের মনে সন্দেহ হয়। এরপর একজন অপারেশন থিয়েটারে প্রবেশ করে দেখেন রোগী অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। অপারেশন থিয়েটারের মেঝে রক্তে ভরে গেছে। এ সময় ডাক্তার রেক্সোনা রোগীর স্বজনদের বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য লাভলী বেগমকে এখনই যশোরে নেওয়া প্রয়োজন। রাতেই ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ জোর করেই যশোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শনিবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান লাভলী বেগম।

রোগীর স্বজন সাদ্দাম হোসেন এই প্রতিবেদককে জানান, দারুস শেফা প্রাইভেট হাসপাতালের ডাক্তারের অপচিকিৎসায় লাভলী বেগম মারা গেছে। হাসপাতালের ডাক্তার রেক্সোনা পারভীন অপ্রয়োজনে তার জরায়ু কেটে ফেলেছেন। জরায়ু কেন কাটা হলো এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর তিনি দিতে পারেননি। রোগীর শরীরের রক্তক্ষরণ দেখে ডাক্তার রেক্সোনা নিজেই ঘাবড়ে যান। তিনি আমাদেরকে বলেন এই রোগীর সব দায়-দায়িত্ব আমি নেব। আমি সঙ্গে লোক দিচ্ছি আপনারা দ্রুত যশোর নিয়ে যান বলে গাড়িতে উঠিয়ে দেন। আমরা এ অপচিকিৎসকের বিচার চাই।

এ ব্যাপারে শেফা প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ডা. রেক্সোনা পারভীনের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। পরে ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে গেলে নিরাপত্তারক্ষীরা বলেন ম্যাডাম আজ আসেননি।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার আলমগীর হোসেন বলেন, দারুস শেফা প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে প্রায়ই রোগী মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। প্রতিবারই ভুক্তভোগীরা বিভিন্ন সময় অভিযোগ করলেও প্রাইভেট হাসপাতাল মালিক পক্ষের সঙ্গে সমঝোতা করাই শেষ পর্যন্ত ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয় না। ঘটনা শুনলাম, আমি অবশ্যই এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।


মন্তব্য করুন

daraz
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
আরটিভির ঝিনাইদহ প্রতিনিধি শিপলু জামানের বাবা আর নেই
কালীগঞ্জে ঊষার ইফতার ও দোয়া মাহফিল
ঝিনাইদহে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, নিহত ১
কালীগঞ্জে ট্রাকচাপায় প্রাণ গেলো ব্যাংক কর্মকর্তার
X
Fresh