Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

আরটিভি নিউজ

  ০৫ মে ২০২২, ২২:০৪
আপডেট : ০৫ মে ২০২২, ২২:১৮

সাবেক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মানবাধিকার কর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ

গাজীপুরের শ্রীপুরে এক মানবাধিকার কর্মী ও নারী উদ্যোক্তাকে বিয়ের প্রলোভনে গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি শাহীন আলম (৩২) দেড় বছর ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

ওই তরুণী বৃহস্পতিবার (৫ মে) অভিযুক্ত শাহীনের বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি তার ফেসবুক একাউন্টে অভিযুক্তের ছবি সংযুক্ত করে জানিয়েছেন- সুবিচার না পেলে তিনি আত্মহত্যা করবেন।

জানা গেছে, শাহীন আলম গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ ধনুয়া (নগর হাওলা) গ্রামের ওয়াহিদ মিলিটারীর ছেলে। আর ওই তরুণী মানবাধিকার কর্মী হিসেবে তৃণমূলে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ, শিশু ও নারী অধিকার বিষয়ে কাজ করেন। পাশাপাশি তিনি এলাকায় কনজ্যুমার ফুড আইটেম ও কসমেটিক্সের ব্যবসা করেন।

ওই তরুণী জানান, ২০২১ সালের প্রথম দিকে শ্রীপুরের বিভিন্ন এলাকায় তিনি যখন বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ, শিশু ও নারী অধিকার নিয়ে কাজ করতেন তখন অভিযুক্ত শাহীন তাকে অনুসরন করতেন। ওই বছরের ৮ জুলাই রাতে ফেইসবুক মেসেঞ্জারে ওই তরুণীর কাছে পণ্য কিনতে চান শাহীন। পরদিন সন্ধ্যা ৬টার দিকে পণ্য নিয়ে শ্রীপুরের জৈনাবাজার এলাকায় ন্যাশনাল ব্যাংকের কাছে গেলে অভিযুক্ত ফোনে ভিকটিমকে তার অফিসে ডেকে নেন। সেখানে পণ্য দেখানোর সময় শাহীন ওই তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন।

ভিকটিম আরও জানান, এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের অনুরোধে তিনি মামলা থেকে বিরত থাকেন। এক পর্যয়ে শাহীন তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেন। ওই সময় গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের পদ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কাবিন একটি বাঁধা হতে পারে এই অজুহাতে শাহিন কাবিন রেজিস্ট্রি করেননি। এরপর অভিযুক্ত ভিকটিমকে নিয়ে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে বিভিন্ন এলাকায় মেলামেশা করেন। পাশাপাশি কৌশলে ভিকটিমের কাছ থেকে তিন লাখ টাকাও নেন। সম্প্রতি শাহীন ওই তরুণীর সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন এবং গত ৪ মে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করেন।

এ বিষয়ে গাজীপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মোশারফ হোসেন ভুঁইয়া বলেন, ভিকটিম তার প্রতিবেশি ভাতিজি। ভিকটিম শাহীন আলমের বিরুদ্ধে অপমানিত ও লাঞ্ছিত হওয়ার অভিযোগ করেছেন। তবে শাহীন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

সদ্য বিলুপ্ত গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল আলম রবিন বলেন, অভিযুক্ত শাহীন আলম তার কমিটির সহ-সভাপতি ছিলেন। বিষয়টি তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে জানতে পেরেছেন।

তিনি বলেন, শাহিনের বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে। তদন্ত করে যদি তার অপরাধ প্রমাণিত হয় তাহলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শ্রীপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহফুজ ইমিতিয়াজ ভুঁইয়া ওই তরুণীর অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ভিকটিমকে নারী ও শিশু আদালতের মাধ্যমে আইনের আশ্রয় নেওয়ার পরার্মশ দেওয়া হয়েছে।

অভিযুক্ত শাহীনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS