Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

চট্টগ্রাম সংবাদদাতা, আরটিভি নিউজ

  ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:৫৫
আপডেট : ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:০৭

খাদেম-বাবুর্চি সেজে ২০ বছর পলাতক, অবশেষে গ্রেপ্তার ফাঁসির আসামি 

খাদেম, বাবুর্চি, সেজে, ২০, বছর, পলাতক, অবশেষে, গ্রেপ্তার, ফাঁসির, আসামি,  
ছবি: আরটিভি

খুন করে চট্টগ্রামসহ সারাদেশে কখনো বাবুর্চি আবার কখনো মাজারের খাদেম-দারোয়ানের ছদ্মবেশে ঘুরে বেড়িয়েছেন, তবে শেষ রক্ষা হলো না। অবশেষে ২০ বছর পর র‍্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় ব্যবসায়ী জানে আলম হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সৈয়দ আহম্মেদ (৬০)।

বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত সৈয়দ লোহাগাড়ার আমিরাবাদ গ্রামের মৃত ইয়াকুব মিয়ার ছেলে।

শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) সকালে র‍্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এম এ ইউসুফ আরটিভি নিউজকে বলেন, ২০০২ সালের ৩০ মার্চ আদালতে সাক্ষী দেওয়ার প্রাক্কালে আনুমানিক সকাল ৯টায় স্থানীয় কিছু দুষ্কৃতকারী ও সৈয়দ বাহিনী ব্যবসায়ী জানে আলমকে (৪৮) এক বছরের শিশুসন্তানের সামনে নির্মম ও নৃশংসভাবে লাঠিসোঁটা, দেশীয় ধারালো অস্ত্র ও হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে এবং গুলি করে হত্যা করে।

ওই দিন জানে আলমের বড় ছেলে মো. তজবিরুল আলম বাদী হয়ে সৈয়দ আহম্মেদকে অন্যতম প্রধান আসামি করে ২১ জনের নামে লোহাগাড়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এরও আগে ২০০১ সালের ৯ নভেম্বর নিহতের ছোট ভাই অর্থাৎ বাদী মো. তজবিরুল আলমের আপন ছোট চাচাকে ওই বাহিনী একই কায়দায় হত্যা করে। ওই ঘটনায়ও লোহাগাড়া থানায় ১৩ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছিল।

র‍্যাবের সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নুরুল আবছার বলেন, পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনের সাথে সম্পূর্ণ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় তাকে ব্যবসায়ী জানে আলমের হত্যা মামলার আসামি হিসেবে শনাক্ত করতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে। সোর্সের সহায়তায় জানে আলম হত্যা মামলার আসামি সৈয়দ আহম্মেদকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

এনএইচ/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS