Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ৩ মাঘ ১৪২৮

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৫:২৬
আপডেট : ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৫:৩৩
discover

আলমডাঙ্গায় ১৬ চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

আলমডাঙ্গায় ১৬ চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত
ফাইল ছবি

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় ১৩টি ইউনিয়নের ১৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে দুজন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী, ৭ জন ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ও ৭ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন।

গত ২৮ নভম্বের আলমডাঙ্গা উপজলার ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আইন অনুযায়ী, নির্বাচনে পোলকৃত মোট ভোটের আট ভাগের এক ভাগ না পাওয়া প্রার্থীদের জামানত স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাজেয়াপ্ত হয়। সে অনুযায়ী ১৬ জনের চেয়ারম্যান প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

বেলগাছি ইউনিয়নে মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১৬ হাজার ৭৫টি। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী (নৌকা) সমীর কুমার দে পেয়েছেন ১০২ ভোট যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের শতকরা মাত্র ১ ভাগ।

চিৎলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী (নৌকা) আব্দুল বাতেন পেয়েছেন ৮২৭ ভোট যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের শতকরা ৬ ভাগ। একই ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীক ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ইমদাদুল হক পেয়েছেন ৬৬৪ ভাট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৫ শতাংশ। একই ইউনিয়ন অটোরিকশা প্রতীকের স্বতন্ত প্রার্থী উজির আলী পেয়েছেন ৪২ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ১ শতাংশর কম।

কালিদাসপুর ইউনিয়ন চশমা প্রতীক স্বতন্ত্র প্রার্থী আহসান উল্লাহ পেয়েছেন ৬৮০ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৪ শতাংশ।

খাসকররা ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীকের ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আবাস উদ্দিন পেয়েছেন ৪১৩ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৩ শতাংশ।

ডাউকি ইউনিয়ে আনারস প্রতীক স্বতন্ত্র প্রার্থী কাউসার আহমদ পেয়েছেন ৫৯১ ভোট যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৪ শতাংশ। একই ইউনিয়ন হাতপাখা প্রতীকের ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুল মজিদ পেয়েছেন ৭৫ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ১ শতাংশর কম। একই ইউনিয়ন স্বতন্ত্র প্রার্থী সোহানুর রহমান চশমা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৪ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ১ শতাংশর কম।

হারদী ইউনিয়নে পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের মধ্যে মাত্র ৪২৮ ভোট পেয়েছেন ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আমিনুল হক। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের শতকরা প্রায় ২ ভাগ।

ভাঙাবাড়িয়া ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীকের ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী বিল্লাল হোসেন মাত্র ৭৪ ভোট পেয়েছেন। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ১ শতাংশর নিচে।

বাড়াদী ইউনিয়ন ঘাড়া প্রতীক স্বতন্ত্র প্রার্থী আশিকুর রহমান পেয়েছেন মাত্র ৫৭০ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ৪ শতাংশ।

জেহালা ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীকের ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ইদ্রিস আলী পেয়েছেন ৩৯০ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৩ শতাংশ। একই ইউনিয়ন আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মশিউর রহমান পেয়েছেন ৩৬৩ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ৩ শতাংশ।

গাংনী ইউনিয়নে হাতপাখা প্রতীকের ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী নাজিম উদ্দীন ৩১৯ ভোট পেয়েছেন। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের প্রায় ২ শতাংশ। একই ইউনিয়ন আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইসলাম মামুন পেয়েছেন মাত্র ২৭ ভোট। যা পোলকৃত মোট বৈধ ভোটের ১ শতাংশর কম।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তারেক আহমেদ জানান, কোনো প্রার্থী কাস্টিং ভোটের ৮ ভাগের এক ভাগ পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হবে না। অন্যথায় বাজেয়াপ্ত হবে। আর বাজেয়াপ্ত হলে জামানতের টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়া হবে।

এমআই/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS