Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

কুমিল্লায় মন্দিরের ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

A three-member inquiry committee has been formed into the temple incident in Comilla
ঘটনাস্থল পরিদর্শনে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ কর্মকর্তারা

কুমিল্লায় মন্দিরে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের’ ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিকে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ কামরুল হাসান। আজ বুধবার (১৪ অক্টোবর) এ নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ডিসি মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, ‘আমরা পবিত্র কোরআনের মর্যাদা বুঝি। যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। সনাতন ধর্মাবলম্বী নেতারা আমাদের বলেছেন, পূজা বন্ধ রাখতে। আমরা তাদের পূজা চালিয়ে যেতে বলেছি। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। ইসলামেও কারও ধর্ম পালনে বাধা দেওয়ার বিধান নেই।’

জানা গেছে, কুমিল্লা জেলা পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (ডিএসবি) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোনের নেতৃত্বে এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তার সঙ্গে রয়েছে আরও ২ সদস্য।

এরআগে কুমিল্লায় গতকাল বুধবার সকাল থেকে শুরু হওয়া উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয় পূজামণ্ডপে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটিও।

এ ঘটনায় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার বিষয়ে একটি খবর আমাদের কাছে এসেছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানায়, কুমিল্লা শহরে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে তৈরি একটি মণ্ডপে কোরআন অবমাননার অভিযোগ নিয়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ ঘটনায় বুধবার সকালে পুলিশ ও বিক্ষুব্ধদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল জানিয়েছেন, ‘কুমিল্লার ঘটনায় দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

র‍্যাব মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, ‘বাংলাদেশ মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান সকলের। সকল ধর্মের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ একসঙ্গে বসবাস করি। ন্যায়ের বন্ধনে আবদ্ধ থেকে সম্প্রীতির যে দৃষ্টান্ত আমরা বিশ্বের বুকে স্থাপন করেছি, সামান্য কিছু ঘটনা তা নষ্ট করতে পারবে না। সম্প্রীতির এই বাংলাদেশে যদি কেউ আমাদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়, তবে সে হিন্দু বা মুসলিম যে ধর্মেরই হোক, তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

কেএফ

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS