Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮

আবারো ‘উ'ত্তপ্ত’ টাঙ্গাইল 

আবারো ‘উত্তপ্ত’ টাঙ্গাইল 

আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে টাঙ্গাইলের আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক পরিবেশ। রোববার থেকেই আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু ছিল টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা এবং মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদের স্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহার আহমেদের সংবাদ সম্মেলন ঘিরে। উভয় পক্ষই আজ টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের দিন ধার্য করেন। সকাল থেকেই প্রেসক্লাব এলাকায় মোতায়েন করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ। থমথমে পরিবেশ বিরাজ করতে থাকে পুরো এলাকা জুড়ে।

আরও পড়ুন...স্বাস্থ্যবিধি মেনে হবে এসএসসি পরীক্ষা: শিক্ষাবোর্ড

সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা এবং দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদের স্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহার আহমেদের সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা বলেন, গত ১ জুন আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা, ষড়যন্ত্রমূলক তথাকথিত সংবাদ সম্মেলনের অভিযোগ করা হয়, আমি নাকি তপন রবিদাস নামে এক ব্যক্তিকে রিভলভার ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি প্রদান করেছি। এমনকি ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শহর ছেড়ে চলে যেতে বলেছি। তথ্যটি সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত। প্রকৃতপক্ষে তপন রবিদাস নামে কোনও ছেলেকে আমি চিনি না। কখনো দেখিও নাই। এটি সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রমূলক সাজানো নাটক, যার কুশীলবরা পর্দার আড়ালে রয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি একটি মিথ্যা রাজনৈতিক প্রতিহিংসামূলক মামলায় দীর্ঘ ৩৪ মাস ২১ দিন কারাবন্দি ছিলাম। এমন কোনও ষড়যন্ত্র নাই যা আমাকে আটকে রাখার জন্য করা হয় নাই। কিন্তু মহান আল্লাহর মেহেরবানীতে ও অসীম রহমতে সকল ষড়যন্ত্র ছিন্ন করে আমি ২০১৯ সালের ৯ জুলাই জামিনে মুক্ত হই। তখন আমার বিরুদ্ধে নতুন করে ষড়যন্ত্রের নীল নকশা তৈরি শুরু করতে থাকে নতুন হাইব্রিড আওয়ামী লীগরা। আমি জেলখানা থেকে বের হওয়ার পর একটি গোপন বৈঠকে মিলিত হয় হাইব্রিডরা। জামিলুর রহমান মিরন (জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক), ছোট মনি (টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভুঞাপুর) আসনের সংসদ সদস্য, বড় মনি (টাঙ্গাইল বাস কোচ মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব) টাঙ্গাইলে সুকৌশলে আরও একটি অপকর্ম করে জজ মিয়া নাটক সাজিয়ে আমাকে নতুন করে ফাঁসাবে। বিষয়টি আমি জানার পর প্রশাসনকে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এবং আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডকে অবগত করি। তাদের সতর্ক নজরদারিতে কুচক্রীমহলের পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়। কিন্তু তারা থেমে থাকেনি। তপন রবিদাসের সংবাদ সম্মেলনও কুচক্রীমহলের ষড়যন্ত্রের অংশ।টাঙ্গাইলে হত্যা, লুট, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, রাহাজানি, টেন্ডারবাজির মাধ্যমে অন্যায়ের রাজত্ব কায়েমকারী হাইব্রিড মার্কা আওয়ামী লীগারদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক এবং দলীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য দাবি করছি।

আরও পড়ুন...ঢাকা-১৪ আসনের মনোনয়ন ফরম নিলেন দুই ডজন আ.লীগ নেতা

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঘাটাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোতালেব হোসেন, আনেহলা ইউপি চেয়ারম্যান তালুকদার মো. শাহজাহান, দেওপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাইন উদ্দিন তালুকদার, লোকেরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান শরিফ হোসেন, জেলা শ্রমিক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও টাঙ্গাইল সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আব্বাস আলী, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইসতিয়াক আহমেদ রাজীব প্রমুখ।

অপরদিকে টাঙ্গাইলে মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদের স্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহার আহমেদ পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সাবেক এমপি রানা সংবাদ সম্মেলন করে টাঙ্গাইলকে অস্থিতিশীল করার জন্য পায়তারা করছে। গত ২০১৩ সালে ১৮ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদকে হত্যা করে টাঙ্গাইলকে অমানিশা করে। তারপর টাঙ্গাইল বাসী রুখে দাঁড়ান খুনিদের বিরুদ্ধে। এরপর গত কয়েকদিন আগে তপন রবিদাসকে পেটে পিস্তল ঠেকিয়ে হত্যার হুমকি দেয় এই রানা। তাকে টাঙ্গাইল শহর ছেরে চলে যেতে বলেন। আমরা এই খুনিদের বিচার চাই।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, টাঙ্গাইল বাস কোচ মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব বড় মনি, কাউন্সিলর হাজী মোর্শেদ, আমিনুর রহমান খান আমিন ও নাহার আহমেদের কন্যা ফারজানা আহমেদ প্রমুখ।

এসএস

RTV Drama
RTVPLUS