Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮

কুমিল্লা প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১৭ মে ২০২১, ১৩:১৩
আপডেট : ১৭ মে ২০২১, ১৩:২১

গভীর রাতে পিটিয়ে খুনের পর বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন

গভীর রাতে পিটিয়ে খুনের পর বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন
নিহত মনির

কুমিল্লায় পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জের ধরে মনির হোসেন নামে এক যুবককে পিটিয়ে খুনের পর পরিচয় গোপন করে বেওয়ারিশ মরদেহ হিসেবে দাফন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার (১৬ মে) রাতে এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী সালমা বেগম বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করলেও পুলিশ মামলায় অভিযুক্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

নিহত মনির (৪৫) নগরীর অশোকতলা এলাকার আবদুল জব্বারের ছেলে। তিনি সদর উপজেলার দুর্গাপুর দীঘিরপাড় এলাকায় শ্বশুরবাড়িতে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছিলেন।

নিহতের নিকটাত্মীয় কুমিল্লা সদর উপজেলার দুর্গাপুর উত্তর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন বলেন, পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে একই উপজেলার ঘোড়ামারা গ্রামের আমির হোসেনের ছেলে আজাদ, এরশাদ, শহিদসহ আরও কয়েকজন মিলে মনির হোসেনকে গত বুধবার তুলে নিয়ে যায়।

তারপরে কয়েক দফা মারধর করে মনিরকে আটকে রাখে তারা। এ সময় মনিরের মৃত্যু হয়। পরে ঘাতকরা তার মরদেহ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ফেলে চলে যায়। এতে পুলিশ বেওয়ারিশ হিসেবে মরদেহটিকে শনাক্ত করে। আমরা গত বুধবার অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো সন্ধান পাইনি।

বৃহস্পতিবার কুমিল্লা (১৩ মে) মেডিকেল কলেজের ভর্তি রেজিস্ট্রারে মনিরের ভর্তির তথ্য থাকলেও রোগী কিংবা মরদেহ পাইনি আমরা। সর্বশেষ রোববার (১৬ মে) রাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় ছবি দেখে তাকে শনাক্ত করি। এর পর জানতে পারি বেওয়ারিশ মরদেহ হিসেবে তাকে নগরীর টিক্কাচর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল হক জানান, এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেছেন। আমরা ঘটনার তদন্ত করে এর সঙ্গে জড়িতদের অবশ্যই গ্রেপ্তার এবং আইনের আওতায় আনব।

জিএম

RTV Drama
RTVPLUS