Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮

পতেঙ্গা সৈকতের ভিড়, ঠেকাতে পারেনি পুলিশও

পতেঙ্গা সৈকতের ভিড়, ঠেকাতে পারেনি পুলিশও
ফাইল ছবি

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে চট্টগ্রামের সব বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকায় ঈদের দিন জনশূন্য থাকলেও সরকারি বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে হাজারো নারী-পুরুষের মিলন মেলায় পরিণত হয় পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে।

শুক্রবার দুপুরের দিকে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে মানুষ জড়ো হতে শুরু করে সৈকত এলাকায়। পুলিশ মাইকিং করে ভিড় না করার অনুরোধ করলেও দর্শনার্থীরা তা মানেননি।

এদিকে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা, ফয়েজ লেক, কাজীর দেউড়ি শিশু পার্ক, বহদ্দারহাট স্বাধীনতা কমপ্লেক্স, কর্ণফুলী শিশু পার্ক বন্ধ থাকায় অনেকে সেখানে গিয়ে ফেরত এসেছেন।

ফয়েজ লেক অ্যামিউজমেন্ট পার্ক পরিচালনাকারী সংস্থা কনকর্ডের উপ-ব্যবস্থাপক বিশ্বজিৎ ষোষ বলেন, ফয়েজ লেক কমপ্লেক্সে বর্তমানে কর্মীদের বেতনসহ আনুষঙ্গিক খাতে মাসে খরচ হচ্ছে প্রায় ৪৫ লাখ টাকা। ঈদ উপলক্ষে বোনাসসহ খরচ বেড়েছে। পার্ক বন্ধ থাকায় এবার লোকসান গুণতে হয়েছে।

ঈদের দিন স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে নগরের বিভিন্ন বিনোদনকেন্দ্র ও জনসমাগমস্থলে অভিযান পরিচালনা করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চললেও নগরের বিভিন্ন জায়গায় মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পতেঙ্গা ও ইপিজেড এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুজন চন্দ্র রায় ও হুছাইন মুহাম্মদ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ২২ মামলায় এক হাজার ৮৮০ টাকা জরিমানা আদায় করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্তের ভ্রাম্যমাণ আদালত ফয়েজ লেক এলাকায় তিন মামলায় ৩০০ টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিবেদিতা চাকমার ভ্রাম্যমাণ আদালত সিআরবি, কাজির দেউড়ি ও ডিসি হিল এলাকায় অভিযান চালায়।

শেফা/এসএস

RTV Drama
RTVPLUS