logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

রুবেল-বরকতের বাতিল ৩৮টি উন্নয়ন প্রকল্প শুরুর দাবি

Rubel-Barkat demanded, cancellation of 36 development, rtv news
ছবি সংগৃহীত
ফরিদপুরের  বহুল আলোচিত রুবেল-বরকতের ৩৮টি উন্নয়ন প্রকল্প বাতিল হওয়ায় হুমকির মুখে পড়েছে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড। ফলে উন্নয়ন বঞ্ছিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে জনমনে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি দ্রুত পুনরায় দরপত্রের মাধ্যমে স্বচল করা হবে বন্ধ হওয়া প্রকল্পগুলো।

গেলো সাত জুন দুই হাজার কোটি টাকার মানিলন্ডারিং মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই শহর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ফরিদপুর প্রেসক্লাবের বহিষ্কৃত সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের ৩৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের চলমান কাজ বাতিল করেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি)।

গেলো ৬ সেপ্টেম্বর থেকে পর্যায়ক্রমে এ কাজগুলি বাতিল করা হয়। বাতিল হওয়া কাজগুলো চুক্তিমূল্য ছিলো ৩০৮ কোটি টাকা।

সাজ্জাদ হোসেন বরকতের নিজের নামীয় ‘সাজ্জাদ বরকত কনস্ট্রাকশন অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড’ ও ‘মেসার্স প্রত্যাশা এন্টার প্রাইজ’এবং ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের মালিকানাধীন রাফিয়া কনস্ট্রাকশন লিমিটেড।

উন্নয়ন কাজের মধ্যে অন্যতম প্রকল্পগুলো হলো ফরিদপুর সদর উপজেলার পদ্মা নদী স্রোতধারায় ৫৮০ মিটার দৈর্ঘের নির্মিত সেতু, উপজেলা পরিষদ ভবন, উপজেলা পর্যায়ে কেন্দ্রীয় মসজিদ নির্মাণ, সড়ক সম্প্রসারণ ও কার্পেটিং, কালর্ভাট ও জেলা পরিষদের আধুনিক অডিটোরিয়াম।

গত চার মাস যাবত প্রকল্পগুলো বন্ধ থাকায় নানান সমস্যায় রয়েছেন স্থানীয়রা। তাদের দাবি দ্রুত এই উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর কাজ শুরু করার।

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার মতিয়ার রহমান জানান, উপজেলা সদর থেকে মিনতলা পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার সড়কটি গত চার মাস কাজ বন্ধ রয়েছে। প্রতিদিন এই পথ দিয়ে যাতায়াতকারীদের নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত রয়েছে। প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।

ফরিদপুর সদরের নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের মোহম্মদ মাদবরের ডাঙ্গী মসজিদ হতে মোহন মিয়ার নতুন হাট পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়কের উন্নয়ন কাজ বন্ধ রয়েছে। ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যার মোস্তাকুজ্জামান জানান, সড়কটি কাজ যেভাবে বন্ধ রয়েছে, দ্রুত নতুনভাবে শুরু না করতে পারলে সড়কটি দিয়ে চলাচল করা অসম্ভব হয়ে পড়বে।  

একইভাবে বন্ধ রয়েছে ফরিদপুরের বোয়ালমারীর উপজেলা পরিষদ ভবন।

এ উপজেলার চেয়ারম্যান এম এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়া জানান, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী যেভাবে পুনরায় দরপত্র দিয়ে কাজটি সচল করা যায় সেই বিষয়টি বিবেচনায় নিতে হবে। তা না হলে সরকারি এই সম্পদ নষ্ঠ হবে।

জেলা সদরের বদরপুর এলাকায় উপজেলা কেন্দ্রীয় মসজিদটির উন্নয়ন কাজের পাইলিংয়ের কাজ শেষ হওয়ার পরে অন্য কাজ বন্ধ রয়েছে। এই মসজিদের মুসল্লিরা এখন কষ্ট করে তাদের নামাজ পড়তে হচ্ছে। এই এলাকার বাসিন্দা হাসানউজ্জামান বলেন, সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কাছে আহ্বান জানাই মসজিদের উন্নয়ন কাজটি পুনরায় শুরু করার।

এ বিষয়ে ফরিদপুরের এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী কে এম ফারুক হোসেন জানান, যে কাজগুলি বাতিল করা হয়েছে সেগুলির যৌথ নীরক্ষণ শেষে পুনরায় দরপত্র  আহ্বান করে বন্ধ হওয়া কাজগুলি আবার চালুর করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

তিনি বলেন,  আশা করছি এই প্রক্রিয়াটা দ্রুত শেষ করে পুনরায় দরপত্র আহ্বানের মধ্যে দিয়ে চলমান কাজ সম্পন্ন করার।

জেবি

RTVPLUS