logo
  • ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পটুয়াখালী প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১৪ নভেম্বর ২০২০, ২১:১৩
আপডেট : ১৪ নভেম্বর ২০২০, ২১:৫৩

ভাঙনের কারণে সৌন্দর্য হারাচ্ছে সাগরকন্যা কুয়াকাটা (ভিডিও)

প্রতিবছর সমুদ্রের টেউয়ের তোড়ে ভাঙছে কুয়াকাটা সৈকতের পাড়। এতে সৌন্দর্য হারাচ্ছে সাগরকন্যা কুয়াকাটা সৈকত। অস্বাভাবিক জোয়ারের তাণ্ডবে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে দৃষ্টিনন্দন নারিকেল বাগান, ঝাউ বনসহ বিভিন্ন স্থাপনা। দিন দিন সংকীর্ণ হয়ে পড়ছে সৈকতের বালিয়াড়ির সীমানা। বিশ্ব নন্দিত এ সৈকত রক্ষায় দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি পর্যটকসহ সংশ্লিষ্টদের। তবে ভাঙন রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম।

সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের অপরূপ সৌন্দর্যের দেখা মিলে সাগরকন্যা খ্যাত পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সৈকতে। তবে চলমান ভাঙনে রূপ লাবণ্য হারিয়ে বিধ্বস্ত এখন এই সমুদ্র সৈকত। এক সময়  সৈকতের প্রস্থ ছিল দুই থেকে তিন কিলোমিটার। কয়েক বছরের ভাঙনে সৈকতের প্রস্থ ঠেকেছে মাত্র তিনশ’ থেকে চারশ’ মিটারে। সমুদ্রের অস্বাভাবিক জোয়ারের তাণ্ডবে বিলীন হয়েছে নারিকেল, তাল বাগানসহ সারি সারি গাছ।তাই কুয়াকাটায় এসে এখন হতাশ হয়ে ফিরতে হয় পর্যটকদের। 

পর্যটকরা বলছেন, কুয়াকাটা সৈকত আরেকটু সুন্দর হলে পর্যটকদের ভিড় বাড়বে। সৈকতের তীর ভাঙনের ফলে গাছপালা বিলীন হয়ে পড়েছে। তীরের গাছপালা বেঁচে থাকলে আরও সুন্দর লাগতো। এখনও জোয়ারে গাছপালা ভেঙে যাচ্ছে। অব্যাহত ভাঙনের মুখে পর্যটক স্থান, পার্ক, মসজিদ-মাদরাসা সেবাশ্রম এবং বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

স্থানীয়রা বলেন, সাগর যেভাবে ভাঙা শুরু হয়েছে এভাবে চলতে থাকলে মসজিদ ও মন্দির টিকিয়ে রাখা কঠিন হবে। ভাঙন রোধে স্থায়ী ব্যবস্থার পরিকল্পনায় পানি উন্নয়ন বোর্ড। আর সৈকত রক্ষা ও উন্নয়নের জন্য ৪৫০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়ার কথা জানান পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক।

পানিসম্পদ উপমন্ত্রী বলেন, ৪৫০ কোটি টাকা প্রকল্প হাতে নিয়েছি। আমরা আশা করি খুব তাড়াতাড়ি বিলটি একনেক থেকে পাশ হয়ে আসবে এবং আমরা কাজটি শুরু করতে পারবো।

অপরূপ সৌন্দর্যের এ লীলাভূমি রক্ষায় সরকার দ্রুত উদ্যোগী হবেন-এমন প্রত্যাশা পর্যটকসহ সবার। 

জিএম/এফএ

RTVPLUS