logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

নওগাঁয় চার বেসরকারি ক্লিনিককে জরিমানা

Four private, clinics in Naogaon, rtv news
নওগাঁ
চিকিৎসার পরিবেশ না থাকায় নওগাঁয় চারটি বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে মোট ত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদের মধ্যে শহরের সদর হাসপাতাল রোড এলাকার বলাকা ক্লিনিক এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ২০ শয্যাবিশিষ্ট ক্লিনিক নির্মাণের অনুমোদন নিয়ে ৬০-৮০ শয্যার উপস্থিতি, অপারেশন থিয়েটারে অসাস্থ্যকর পরিবেশ, ডিউটি ডাক্তার ও মেডিকেল ডিপ্লোমা নার্স না থাকায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ সময় এসকল অভিযোগের প্রেক্ষিতে বলাকা ক্লিনিকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক এনামুল হক জানান, যে সকল অভিযোগের প্রমাণ পেয়ে জরিমানা করা হয়েছে সেই সকল চাহিদা সম্পূর্ণ করবার জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত প্রতিষ্ঠানটিকে ১৫ দিনের আলটিমেটাম দিয়ে গেছেন। তারই প্রেক্ষিতে ক্লিনিকটির ব্যবস্থাপনা কমিটিকে এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা টিম শহরের একই অভিযোগে প্রাইম ল্যাব অ্যান্ড হাসপাতালকে ১০ হাজার টাকা, একতা ক্লিনিককে পাঁচ হাজার টাকা ও জোবেদা ক্লিনিককে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে অভিযান চালিয়ে জরিমানা করা হয়।

এ সময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এনডিসি) রফিকুল আলম ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এনডিসি) রফিকুল আলম বলেন, সারাদেশের মতো নওগাঁ জেলাতেও বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অভিযানে নিম্নমানের পরীক্ষাগার, অস্থাস্থ্যকর পরিবেশে ক্লিনিক পরিচালনা করা, প্রযোজনীয় ডাক্তার না থাকা, মেডিকেল এসিস্টেন্ট নার্স না থাকাসহ অনেক অভিযোগে তাদের জরিমানা করা হচ্ছে।

আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এ সকল প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে পরবর্তীতে ক্লিনিকটিকে সিলগালা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

অভিযানে সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ, ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মুঞ্জুর এ মোর্শেদ, জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির সভাপতি আতোয়ার রহমান খোকাসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নওগাঁ জেলা সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ আরটিভি নিউজকে জানান, ক্লিনিকগুলোর ল্যাবরোটরিতে যে সকল উপাদান ব্যবহার করা হচ্ছে তার মান নিম্নমানের এবং ঝুঁকিপূর্ণ। তাই ক্লিনিকগুলোর ল্যাবে যারা কাজ করে সে সকল কর্মচারীরা নির্দিষ্ট শিক্ষায় শিক্ষিত না।

তিনি বলেন, সার্টিফিকেট এর কথা জানতে চাইলে তারা চুপ করে থাকেন।

জেবি

RTVPLUS