logo
  • ঢাকা বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

নাড়ীর টানে মিললেন তারা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২৭ মে ২০১৯, ১০:৩৮
রোববারের সন্ধ্যেটা ছিল অন্যরকম। ভিন্ন পেশা, ভিন্ন রাজনৈতিক মত, তবু দল-মত উর্ধ্বে রেখে একই এলাকার সন্তান হিসেবে মিলিত হয়েছিলেন তারা। এসেছিলেন প্রাণের টানে। রাজধানীর সেগুনবাঁগিচায় দোহার-নবাবগঞ্জ পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত ইফতারে এমন চিত্র দেখা গেছে।

bestelectronics
ইফতার আয়োজনের শুরুতেই ছিল মতবিনিময় পর্ব। এতে তত্বাবধারক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. এ আর খান আলোচনায় অংশ নেন। তিনি বলেন, দোহার-নবাবগঞ্জ বহু বছরের পুরাতন সেতু বন্ধনে আবদ্ধ। আমার একে আপরের আত্মার আত্বীয়। দোহার-নবাবগঞ্জ পেশাজীবী পরিষদের মাধ্যমে পুনরায় এর বহিঃপ্রকাশ ঘটায় আমি অন্তর থেকে সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছি।  

দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার সম্পাদক মাহবুবা চৌধুরীও ছিলেন ইফতার আয়োজনে। তিনি বলেন, আত্মার টানে সকলের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার জন্য চলে এসেছি। এমন একটি প্ল্যাটফর্ম আরো আগেই দরকার ছিল। তবে অনেক পরে হলেও যে হয়েছে সেজন্য আয়োজকদের প্রাণঢালা অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানাই। এই সংগঠনের কারণেই আজ আমরা সকলে এক কাতারে আসতে পেরেছি। 

এসোসিয়েশন ফর সোস্যাল সার্ভিসেসের চেয়ারপারসন কে এম বাবর আশরাফুল হক বলেন, দোহার নবাবগঞ্জ পেশাজীবী পরিষদের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। বিভিন্ন পেশার ব্যাক্তিদের এক কাতারে নিয়ে আশায় আমাদের যে কোন সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করতে পারবো। 

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্বিবিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. কবিরুল বাশার। তিনি দোহার-নবাবগঞ্জবাসীকে একত্রিত হওয়ার আহব্বান জানান। নিজ নিজ কমিউনিটির সহায়তার মাধ্যমে বৃহৎ সংঠন গড়ে উঠতে পারে বলেও মত প্রকাশ করেন। 

এনাম মেডিকেল কলেজের শিক্ষক ডা: বাবুল মিয়া বলেন,  এই সংগঠনের মাধ্যমে সকল পেশার মানুষগুলো এক হলে মানবিক সেবা প্রদান করা সম্ভব। তবে এটাকে রাজনৈতিক দল-মতের ঊর্ধ্বে রাখতে হবে। 

অনুষ্ঠানে একাত্তর টিভির বার্তা প্রধান শাকিল আহামেদ বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়ন হওয়ার পর দোহার-নবাবগঞ্জ হবে একটি সম্ভাবনাময় স্থান। তাই এখন থেকেই প্রস্তুতি গ্রহণ করা উচিত। 

মো. আনিসুর রহমান খানের সভাপতিত্বে ইফতার আয়োজনটি পরিচালনা করেন রাশিম মোল্লা। 

এসজে

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়