• ঢাকা সোমবার, ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ৮ মাঘ ১৪২৫

আবারো ঢাকার রাস্তায় পোশাক শ্রমিকরা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৩৪ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৫:২৯
নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করছেন পোশাক শ্রমিকরা। শ্রমিকদের বিক্ষোভ ঠেকাতে বেশ কয়েকটি কারখানা বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

আজ শনিবার সকাল ৮টা থেকে তারা রাস্তায় বিক্ষিপ্তভাবে আন্দোলন করেন। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হচ্ছে। ক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা বেশ কয়েকটি যানবাহন ভাংচুর করেছেন। 

সকাল থেকে, ভাষানটেক, শেওড়াপাড়াসহ মিরপুরের কয়েকটি এলাকায় রাস্তায় নামেন পোশাক শ্রমিকেরা। এসময় পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষে কয়েকজন আহত হন। এছাড়া বেশ কয়েকটি যানবাহন ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। 

মিরপুর থানার ওসি দাদন ফকির বলেন, শ্রমিকদের শান্ত করতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভাষানটেক থানার ওসি মুন্সি সাব্বির আহমেদ জানান, ভাষানটেক এলাকার কয়েকটি গার্মেন্টসের কয়েক হাজার শ্রমিকরা সকাল থেকে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন। ফলে সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। শ্রমিকদের বুঝিয়ে সড়ক থেকে সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা চলছে।

এদিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে যেসব এলাকায় পোশাক কারখানা রয়েছে সেখানে পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি কাজ করেছে। 

প্রায় এক সপ্তাহ ধরে তারা দফায় দফায় এ বিক্ষোভ করে আসছেন। গত ২৫ নভেম্বর পোশাক শিল্পের জন্য নতুন মজুরি কাঠামোর প্রজ্ঞাপন জারি করে শ্রম মন্ত্রণালয়। তাতে নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকায় দাঁড়ায়। ডিসেম্বরে নতুন মজুরি কাঠামো কার্যকর হয়। চলতি মাস থেকে নতুন কাঠামো মেনে বাড়তি মজুরি পেতে শুরু করেন শ্রমিকেরা। তার আগে নিম্নতম মজুরি ছিল ৫ হাজার ৩০০ টাকা।

গত ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নতুন মজুরি কাঠামোতে বৈষম্যের অভিযোগ তুলে আন্দোলনে নামেন নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের বেশ কিছু কারখানার শ্রমিকেরা। বিজিএমইএ ও বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতাদের চেষ্টায় নির্বাচনের আগে আন্দোলন কিছুটা স্তিমিত হয়। তবে গত রোববার ঢাকার উত্তরার কয়েকটি কারখানার শ্রমিকেরা আন্দোলনে নামেন। পরের দিনগুলোতে তা বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে।

শ্রমিকদের অভিযোগ, নতুন কাঠামোয় বেতন প্রত্যাশা অনুযায়ী পাননি তারা। কারও কারও ক্ষেত্রে বেতন আগের চেয়ে কমে গেছে।

প্রাপ্য বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা সড়কে নেমে আসার পর নতুন সরকার দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে মজুরি কাঠামো পুনর্মূল্যায়নে একটি কমিটি গঠন করেছে। সভায় মালিক পক্ষের ৫ জন, শ্রমিক পক্ষের ৫ জন এবং বাণিজ্য সচিব ও শ্রম সচিবকে নিয়ে মোট ১২ সদস্যের কমিটি করা হয়। এ কমিটি আগামী এক মাসের মধ্যে মজুরির অসঙ্গতিগুলো খতিয়ে দেখবে এবং সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ নেবে। কমিটি গত বৃহস্পতিবার প্রথম সভাও করেছে। 
পোশাক শ্রমিকদের জন্য গত বছর ঘোষিত নতুন মজুরি কাঠামোর সাতটি গ্রেডের মধ্যে যে তিনটি গ্রেড নিয়ে আপত্তি এসেছে, সেগুলো পর্যালোচনা করে সমন্বয়ের আশ্বাস দিয়েছেন কমিটির প্রধান শ্রম সচিব আফরোজা খান।

শ্রমিকদের শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান বলেছেন, সকলের কথা ধৈর্য সহকারে শোনা হবে। শুনে যদি বেতন কাঠামোতে বেসিক বা গ্রসে কোনও অসামঞ্জস্যতা থেকে থাকে তবে অবশ্যই মেটানো হবে। দ্রুত সমস্যা সমাধান করা হবে। মজুরি কাঠামোতে কোনও অসামঞ্জস্যতা থাকলে তা দূর করা হবে।

এমসি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়