• ঢাকা শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০
logo

পাঁচ বিসিএস ক্যাডারের মা সুফিয়াকে রত্নগর্ভা পদক প্রদান 

আরটিভি নিউজ

  ৩০ মার্চ ২০২৪, ১৬:২৫

পাঁচ বিসিএস ক্যাডারের মা মিসেস সুফিয়া আক্তার হককে রত্নগর্ভা পদক প্রদানের মাধ্যমে সম্মানিত করেছে কুমিল্লা যুব সমিতি।

শুক্রবার (২৯ মার্চ) জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনুষ্ঠানিকভাবে এ পদক প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান।

মিসেস সুফিয়া আক্তার হক কুমিল্লা জেলা মুরাদনগর থানার বাইরা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯৫৫ সালের ২ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করে। তার বাবা মৃত তারিফুল ইসলাম সরকার ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক। তখনকার দিনে মেয়েদের বিভিন্ন কারণে লেখাপড়ায় অনগ্রসরতা ছিল। বাবা এবং মা মৃত জোবেদা খাতুনের আন্তরিক প্রচেষ্টায় এবং শাসনে তিনি এইচএসসি পাস করেন। পরবর্তীতে সাংসারিক কাজে ব্যস্ত হয়ে যাওয়ায় আর লেখাপড়ায় এগোতে পারেননি। তার স্বামী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শহীদুল হক পেশায় একজন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এবং সাংবাদিক। মুক্তিযুদ্ধের সময় তাদের এক ছেলে এবং এক মেয়ে ছিল। তার স্বামী বঙ্গবন্ধুর ডাকে যখন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়ার জন্য বাড়ি থেকে পালিয়ে ভারতের মেলাঘরে প্রশিক্ষণ নেওয়ার জন্য চলে গিয়েছিল তখন তিনি দুই সন্তানকে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপন করেছিলেন। কারণ, তখন রাজাকাররা মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের ওপর চরম নির্যাতন করত। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তার স্বামী ফিরে আসলে নতুন করে তাদের জীবন শুরু হয়। একে একে তার চার ছেলে এবং তিন মেয়ে জন্মগ্রহণ করে। তার স্বামী শিক্ষকতা এবং সাংবাদিকতা নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও তিনি একাই তার সাত সন্তানকে লেখাপড়ায় ব্যস্ত রেখেছিলেন।

মিসেস সুফিয়া আক্তার হকের প্রতিটি ছেলেমেয়ে সম্মানজনক পেশায় প্রতিষ্ঠিত। তার বড় ছেলে মো. নোমানুল হক সুপ্রিম কোর্টের একজন অ্যাডভোকেট। দ্বিতীয় ছেলে মো. নাজমুল হক বিসিএস পররাষ্ট্র ক্যাডারের একজন সদস্য। বর্তমানে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পরিচালক হিসেবে কর্মরত আছেন। তৃতীয় ছেলে মো. নাইমুল হক বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের একজন সদস্য। বর্তমানে তিনি ট্যুরিস্ট পুলিশের ঢাকা রিজিয়নে পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত আছেন। চতুর্থ ছেলে মো. নাদিমুল হক বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের একজন সদস্য। তিনি বর্তমানে তিতুমীর সরকারি কলেজে কর্মরত আছেন। বড় মেয়ে রায়হানা কলি বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের একজন সদস্য। তিনি বর্তমানে সবুজবাগ সরকারি কলেজে কর্মরত আছেন। দ্বিতীয় মেয়ে রুমানা কান্তা পেশায় একজন ডাক্তার। তিনি বর্তমানে নিউইয়র্কে একটি হাসপাতালে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত আছেন। তৃতীয় মেয়ে রোখসানা কনা বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের একজন সদস্য। তিনি বর্তমানে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক অধিদপ্তরে (মাউশি) গবেষণা অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন।

মন্তব্য করুন

daraz
  • বাংলাদেশ এর পাঠক প্রিয়
আরও পড়ুন
মৌখিক পরীক্ষার ১০ বছর পর বিসিএস ক্যাডার হলেন আফরোজা
নিখোঁজের ৪ দিন পর বিসিএস ক্যাডার হ্যাপিকে কটেজ থেকে উদ্ধার
X
Fresh