Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯

মেজর পরিচয়ে দেড় কোটি টাকা ঋণ নেন শাহেদ

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদ ওরফে শাহেদ করিম নিজেকে মেজর পরিচয় দিয়ে ব্যাংক থেকে দেড় কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) শাহেদকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান দুদক সচিব মাহবুব হোসেন।

তিনি বলেন, শাহেদ এনআরবি ব্যাংক থেকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ঋণ নিয়েছেন। সেই ঋণ জালিয়াতির বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে দুদকে মামলা হয়। ওই মামলার তদন্তের স্বার্থে তাকে জেল গেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

মাহবুব হোসেন বলেন, আসলে এনআইডি কার্ডটা একটি ইউনিক কার্ড। আমার একটি কার্ড আছে এই নামে, এ নামে আর কেউ থাকবে না। তিনি যে আইডি কার্ডটি এনআরবি ব্যাংকে ব্যবহার করেছেন সেটি ভুয়া, তার দুটি কার্ডের মধ্যে একটি লক করা এবং একটি ডুপ্লিকেট। এর বাইরে আর কোনো কার্ড আছে কি না, এটা তদন্তকালীন সময় বের হয়ে আসবে।

তিনি আরও বলেন, যদি বিধিবহির্ভূত কোনো কাজ হয়ে থাকে অবশ্যই সেটা দুদক দেখবে। শুধু এনআইডি না বিধিবহির্ভূত কোনো কাজ হয়ে থাকলে সেটি দুদক তদন্ত করবে।

এনবিআর ব্যাংক থেকে নথিপত্র সূত্রে দেখা গেছে, মো. শাহেদ কর্মজীবনের পরিচয়ের জায়গায় বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি ১৯৮৩ সালের বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করে ২০০১ সালে মেজর হিসেবে অবসর নেন। ব্যাংকে সরবরাহ করা জাতীয় পরিচয়পত্রের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। অর্থ্যাৎ জাতীয় পরিচয়পত্র ছিল সম্পূর্ণ জাল।

এনআরবি ব্যাংক থেকে হাসপাতালের নামে ঋণ বাবদ দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে শাহেদসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০২০ সালের ২২ জুলাই মামলা করেছিল দুদক। যার তদন্তের দায়িত্ব পালন করছেন উপপরিচালক সৈয়দ নজরুল ইসলাম। আর ওই সব তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতেই শাহেদকে ১৯ এপ্রিল কেরানীগঞ্জের জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS