• ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
logo
স্কুলের টয়লেটে রুদ্ধশ্বাস ৬ ঘণ্টা
মাদারীপুরে বোমা বিস্ফোরণ, পুলিশি অভিযানে গ্রেপ্তার ২
মাদারীপুরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাতবোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।   শনিবার (১১ মে) ভোরে মোস্তফাপুর ইউনিয়নের বালিয়া গ্রামের নিজবাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, বালিয়া গ্রামের সিদ্দিক ফকিরের ছেলে সাখাওয়াত ফকির ওরফে শওকত (৩০) ও একই গ্রামের রহিম ফকিরের ছেলে হাবিব ফকির (২৫)।   স্থানীয়রা জানান, গত ৮ মে অনুষ্ঠিত হয়েছে মাদারীপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। ওইদিন দুপুরে মোস্তফাপুর ইউনিয়নের ৯৫ নম্বর বালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের সামনে ২ চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সেসময় অর্ধশত ককটেল ও হাতবোমা বিস্ফোরণ হয়। এতে আহত হন অন্তত ১০ জন।  এ ঘটনায় আহত একজনের স্ত্রী বাদী হয়ে শুক্রবার (১০ মে) রাতে ১৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ১০ থেকে ১৫ জনের নামে সদর মডেল থানায় বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করেন।  পরে অভিযান চালিয়ে শনিবার ভোরে হাবিব ও সাখাওয়াতকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। দুপুরে তাদের পাঠানো হয় আদালতে। পরে শুনানি শেষে দুজনকেই কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালতের বিচারক। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাদারীপুর সদর মডেল থানার ওসি এএইচএম সালাউদ্দিন। তিনি বলেন, মামলার অন্য আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।
১৪ লাখ টাকা দিয়েও পুলিশে চাকরি হয়নি, এসপির কাছে অভিযোগ
মাদারীপুরে কেন্দ্র দখল নিয়ে সংঘর্ষ-বিস্ফোরণ, আহত ১০
গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে যুবকের মৃত্যু
মাদারীপুরে ট্রাক ও ইজিবাইকের সংঘর্ষ, নিহত ২
মাদারীপুরে মাহিন্দ্র উল্টে চালকসহ নিহত ২
মাদারীপুরে মাহিন্দ্র গাড়ি উল্টে চালকসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হন আরও দুই পথচারী। সোমবার (২৯ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে সদর উপজেলার পখিরা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন মাহিন্দ্র চালক এনামুল হোসেন (২৫) ও চালকের সহযোগী আরিফ শিকদার (১৭)। এনামুল নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলার লাহুড়িয়া এলাকার সরাফাত আলী মীরার ছেলে এবং আরিফ মাদারীপুর সদরের খোয়াজপুর ইউনিয়নের মধ্যচক গ্রামের আনোয়ার শিকদারের ছেলে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে সদর উপজেলার পখিরা এলাকার ফারুক হাওলাদারের গ্যারেজ থেকে সহযোগী আরিফকে সঙ্গে নিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে মাহিন্দ্র গাড়িটি বের করে মাদারীপুর-শরীয়তপুর আঞ্চলিক সড়কে উঠছিল চালক এনামুল। এ সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মাহিন্দ্রটি উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই চালক এনামুল ও তার সহযোগী আরিফের মৃত্যু হয়। এ সময় সড়কের পাশে থাকা দুই পথচারীও আহত হয়। পরে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। মাদারীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএইচএম সালাউদ্দিন জানান, মাহিন্দ্র উল্টে চালকসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। গ্যারেজ থেকে গাড়িটি বের করার উদ্দেশ্যে রওনা হলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।
মাদারীপুরে হিটস্ট্রোকে কৃষকসহ ২ জনের মৃত্যু
মাদারীপুরে ‘হিটস্ট্রোকে’ ব্যবসায়ী শাহাদত সরদার (৫২) ও কৃষক মোসলেম ঘরামী (৫৮) নামে দুইজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। রোববার (২৮ এপ্রিল) মাদারীপুর জেলার কালকিনি ও ডাসার উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত শাহাদত সরদার কালকিনির পশ্চিম শিকারমঙ্গল গ্রামের মৃত সালাম সরদারের ছেলে। অপরদিকে মোসলেম ঘরামী ডাসার উপজেলার মৃত ইসলাম ঘরামীর ছেলে। জানা গেছে, সকালে কালকিনির পশ্চিম শিকারমঙ্গলের প্লাস্টিক কারখানার ব্যবসায়ী শাহাদত সরদার প্রচণ্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে বাড়ির বাইরে বের করা হলে কিছুক্ষণ পরে বুকে ব্যথা হয়। পরে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। অপরদিকে বাড়ির পাশে পাটের জমিতে কাজে যান ডাসার উপজেলার পূর্ব মাইজপাড়া গ্রামের কৃষক মোসলেম ঘরামী। এ সময় হিটস্ট্রোকে মৃত্যু হয় তার। পরে দুপুরে পরিবারের লোকজন জমি থেকে উদ্ধার করে কৃষকের মরদেহ। মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, ‘হিটস্ট্রোকে’ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে বলে স্বজনরা জানিয়েছেন। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।
মাদারীপুরে স্কুলব্যাগ ভর্তি ককটেলসহ আটক ১
মাদারীপুরের কালকিনিতে স্কুলব্যাগ ভর্তি ককটেলসহ নাসির কাজী নামে এক যুবককে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। শুক্রবার (২৯ মার্চ) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ফাঁসিয়াতলা বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক নাসিরের বাড়ি কুমিল্লাতে। তিনি বাচ্চু কাজীর ছেলে। গোয়েন্দা পুলিশ সূত্র জানায়, কালকিনির ফাঁসিয়াতলা এলাকায় ককটেল বহন করে নিয়ে আসা হয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে যায় গোয়েন্দা পুলিশের একটি চৌকস দল। পরে একটি বাড়িতে অভিযানের সময় তল্লাশি চালিয়ে স্কুলব্যাগ ভর্তি ককটেল উদ্ধার করা হয়। এ সময় স্কুলব্যাগ বহনকারী নাসিরকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। অভিযানে গোয়েন্দা পুলিশের পাশাপাশি থানা পুলিশও অংশ নেয়। কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ঘটনাস্থলে উৎসুক জনতা ভিড় করায় মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। এ বিষয়ে মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, আটক নাসির দীর্ঘদিন যাবত জেলার বিভিন্নস্থানে ককটেল, হাতবোমাসহ দেশীয় অস্ত্র এনে বিক্রি করতেন। ধারণা করা হচ্ছে, আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নাশকতার উদ্দেশ্যে ককটেলগুলো আনা হয়েছিল। ঢাকা থেকে বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা আসলে এগুলো নিস্ক্রিয় করা হবে।
শিবচরে আদালতের নির্দেশে পলাতক আসামির মালামাল ক্রোক
মাদারীপুরের শিবচরে আদালতের নির্দেশে পলাতক আসামির বসতঘরের মালামাল ক্রোক করেছে পুলিশ।   বুধবার (১৩ মার্চ) বিকেলে উপজেলার কাদিরপুর ইউনিয়নের কাদির মুন্সীর চরকান্দি গ্রামের পলাতক আসামি মিলন বিবির (৪২) বসতবাড়ি থেকে মালামাল ক্রোক করা হয়।  আসামি মিলন বিবি ওই গ্রামের প্রবাসী শাজাহান শনির স্ত্রী। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ফরিদপুরের ভাঙ্গা থানায় করা চেক ডিজঅনারের এক মামলায় আসামি মিলন বিবি দীর্ঘদিন যাবৎ পলাতক রয়েছেন। দীর্ঘদিন পলাতক থাকায় ফরিদপুরে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক মোহাম্মদ নাসিম মাহমুদ আসামির মালামাল ক্রোকের আদেশ প্রদান করে। আদালতের আদেশ পেয়ে আজ বিকেলে শিবচর থানার এসআই আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল আসামির ঘরের মালামাল জব্দ তালিকা মূল্যে ক্রোক করে। ক্রোককৃত মালামালগুলো হলো- একটি পুরাতন স্টিলের আলমারি, একটি পারটেক্সের পুরাতন ড্রেসিং টেবিল,  একটি প্লাস্টিকের পুরাতন ডাইনিং টেবিল, একটি গ্যাসের চুলা, একটি প্লাস্টিকের পুরাতন স্ট্যান্ড ফ্যান, একটি পুরাতন রাইস কুকার, মাঝারি সাইজের পুরাতন পাতিল, একটি পুরাতন খালি গ্যাস সিলিন্ডার। প্রতিবেশীর মুঠোফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে আসামি মিলন বিবি বলেন, আমি জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনসহ বেশ কয়েকটি এনজিও থেকে ঋণ এনেছিলাম। কোন এনজিও মামলা করেছে আমি কিছুই জানি না। শিবচর থানার এসআই আলমীর হোসেন বলেন, আদালতের নির্দেশে আসামির মালামাল ক্রোক করা হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
কালকিনিতে জিহাদের বাড়িতে শোক
ঢাকার বেইলি রোডে আগুনে পুড়ে মারা যাওয়া জিহাদ শিকদার (১৯) পরিবারে চলছে মাতম। স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠেছে বাড়ির পরিবেশ। শেষবারের মতো তাকে দেখতে ভিড় করছেন এলাকার মানুষ। জিহাদের বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার কয়ারিয়া ইউনিয়নের আলিমাবাদ গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের জাকির শিকদারের ছেলে। স্থানীয়রা জানান, তিন বছর আগে জিহাদ শিকদার পরিবারের হাল ধরতে ঢাকার বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে কাজ নেন। তার আয়ে চলতো তাদের সংসার। এ বিষয়ে কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উত্তম কুমার দাশ বলেন, জিহাদের মৃত্যুতে সমবেদনা জানানোর ভাষা নেই। তার পরিবার থেকে কোনো সহযোগিতা চাওয়া হলে সবসময় পাশে থাকবে প্রশাসন। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর বেইলি রোডে গ্রিন কজি কটেজ ভবনে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এতে নারী-শিশুসহ ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে ৪১ জনের মরদেহ শনাক্ত হয়েছে। পরিচয় নিশ্চিত হয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে ৩৮টি মরদেহ।
নসিমন-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে প্রাণ গেলো ২ জনের
মাদারীপুরের সদরে নসিমনের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে মাদারীপুর-শরীয়তপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের আচমত আলী খান সেতুর টোলপ্লাজার কাছে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন—মাদারীপুর সদর উপজেলার ছিলারচর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মোহাম্মদ আলী বালীর ছেলে রিফাত বালী (১৯), একই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের মৃধার মোড় এলাকার মুক্তার সরদারের ছেলে মারুফ সরদার (৩০)। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাত ১০টার দিকে মাদারীপুর শহর থেকে মঠের বাজারের দিকে রিফাত বালী তার সঙ্গে মারুফ সরদারকে নিয়ে মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে মাদারীপুর-শরীয়তপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের আড়িয়াল খাঁ নদের আচমত আলী খান সেতুর টোল প্লাজার কাছে আসলে বিপরীত দিক থেকে দ্রুত গতিতে ছুটে আসা একটি নসিমনের সাথে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল চালক রিফাত বালী মারা যায়। পরে স্থানীয়রা আহত মারুফ সরদারকে দ্রুত উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ এইচ এম সালাউদ্দিন বলেন, এই ঘটনায় দুইজনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।