• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

আচরণবিধি লঙ্ঘন করে জিসিসিতে মনোনয়নপত্র দাখিল

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১২ এপ্রিল ২০১৮, ২০:৩৮ | আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০১৮, ২১:২৮
আগামী ১৫ মে অনুষ্ঠিতব্য গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে গাজীপুরে ছিল নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তারা ছিলেন নীরব।

বৃহস্পতিবার বিএনপির মেয়রপ্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার বেলা সাড়ে ১১টায় ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম দুপুর দেড়টায় বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে স্থাপিত রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন।

এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় ও এর আশপাশ এলাকায় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করে ব্যানার, প্ল্যাকার্ড, ফ্যাস্টুন, বাঁশের তৈরি নৌকা নিয়ে দফায় দফায় মিছিল এবং মোটরসাইকেলে শোডাউন করতে দেখা গেছে।এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের ২৫-৩০ জন নেতাকর্মী জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তার কক্ষে প্রবেশ করেন।
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : সারাদেশেই রাস্তার অবস্থা খারাপ: অর্থমন্ত্রী
--------------------------------------------------------

খোদ রিটার্নিং কর্মকর্তার কক্ষে আচরণবিধি লঙ্ঘিত হলেও এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা ছিলেন সম্পূর্ণ নীরব ও চুপচাপ। পরে জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়নপত্র গ্রহণ শেষে তাকেসহ অন্যান্যদের নির্বাচনী আচরণবিধির কপি ধরিয়ে দিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

আচরণবিধি লঙ্গনের বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. রকিব উদ্দিন মণ্ডল সাংবাদিকদের বলেন, আচরণবিধি যাতে লঙ্ঘিত না হয়, সে ব্যাপারে আজকে আমি ডিসি সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি, এসপি সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি, প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি, মনোনয়নপত্র দাখিল করার সময় কোনো প্রার্থীর সঙ্গে যেন পাঁচজনের বেশি লোক না আসে। পুলিশ বলেছে- জোর করে তারা ভেতরে ঢুকে গেছেন। আবার অনেকে সাংবাদিক পরিচয়ে কিংবা কৌতূহলবশত আমার রুমে ঢুকে পড়েছেন। তারপরও পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটদের বলে দিয়েছি কোথাও যাতে কেউ আচরণবিধি লঙ্ঘন না করেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, আচরণবিধি যাতে লঙ্ঘিত না হয় এজন্য আমরা বিভিন্ন ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছি, আচরণবিধি বিলি করছি, মাইকিং করছি, প্রশাসনও চেষ্টা করছে। আমাদের প্রচেষ্টা কিন্তু অব্যাহত আছে। তারপরও কিছু অতি উৎসাহী মানুষ অনেক সময় হয়তো আচরণবিধি লঙ্ঘনের চেষ্টা করে।

প্রার্থীর সঙ্গে থাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান বলেন, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার আগে বৃহস্পতিবার সকালে আওয়ামী লীগের জেলা কার্যালয়ে সভা করে নেতাকর্মীদের আচরণবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছি। কিন্তু তারপরও অনেকে তা না মেনে রিটার্নিং কর্মকর্তার কক্ষে ঢুকে পড়েছেন।

বিএনপির প্রার্থী মো. হাসান উদ্দিন সরকার বলেন, সরকারদলীয় প্রার্থী যেভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘন করছে এ নির্বাচন জনগণকে হতাশ করবে। নির্বাচন শুরু হওয়ার আগেই যেভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে, শেষ পর্যন্ত নির্বাচন কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা ভাবার বিষয়। এ ব্যাপারে তিনি হতাশা প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশনকে আরও সক্রিয় হওয়ার আহ্বান জানান।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, ১২ এপ্রিল মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেয়ার শেষ দিন। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১৫ ও ১৬ এপ্রিল, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৩ এপ্রিল, প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে ২৪ এপ্রিল। আগামী ১৫ মে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচনী আচরণবিধির ১১নং ক্রমিকে বলা আছে- প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দের আগে কোনো মিছিল, মিটিং, কোথাও পোস্টার, লিফলেট, ব্যানার স্থাপন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

আরও পড়ুন :

এসজে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়