• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে সু চির পদত্যাগ করা উচিত ছিল’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১১:০১ | আপডেট : ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১১:০৬
ফাইল ছবি

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনা অভিযানের প্রেক্ষিতে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির পদত্যাগ করা উচিত ছিল। বলেছেন জাতিসংঘের বিদায়ী মানবাধিকার প্রধান জেইদ রা’দ আল হুসেইন। খবর বিবিসির।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান বলেন, শান্তিতে নোবেলজয়ীর এই ইস্যু এড়িয়ে যাওয়াটা ‘গভীরভাবে দুঃখজনক’।

সম্ভাব্য গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানসহ ছয় সেনা কর্মকর্তার বিচার হওয়া উচিত বলে জাতিসংঘের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করার পর এমন মন্তব্য করলেন সংস্থাটির মানবাধিকার প্রধান।

তবে মিয়ানমার জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, তারা মানবাধিকার লঙ্ঘন সহ্য করে না। এর আগে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে পদ্ধতিগত জাতিগত নিধনের অভিযোগ উঠেছিল, তবে তারা এটি অস্বীকার করেছে।

মিয়ানমারের দীর্ঘ দিনের গণতন্ত্রপন্থী আন্দোলনের নেত্রী সু চি রাখাইনে সহিংসতা বন্ধে ব্যর্থ হওয়ায় জাতিসংঘের ওই প্রতিবেদনে তার সমালোচনা করা হয়।

বিবিসির সঙ্গে সাক্ষাকারে হুসেইন বলেন, তিনি কিছু একটা করার মতো অবস্থানে ছিলেন। তিনি চুপ থাকতে পারতেন বা এর চেয়ে ভালো, পদত্যাগ করতে পারতেন।
-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : সু চির নোবেল পুরস্কার ছিনিয়ে নেয়া হবে না: নোবেল কমিটি
-------------------------------------------------------

হুসেইন বলেন, সু চির বার্মিজ সেনাবাহিনীর মুখপাত্র হওয়ার কোনও দরকার ছিল না। তিনি বলেন, সে বলতে পারতো, আমি দেশের নামমাত্র নেতা হয়েই থাকতে প্রস্তুত।

এদিকে বুধবার নোবেল কমিটি জানিয়েছে, ১৯৯১ সালে পাওয়া সু চির নোবেল পুরস্কার তারা প্রত্যাহার করবে না।

যদিও মিয়ানমারের শক্তিশালী সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রণ করেন না ৭৩ বছর বয়সী এই নেত্রী। কিন্তু রাখাইনে সেনাবাহিনীর নৃশংস অভিযানের নিন্দা জানাতে ব্যর্থ হওয়ার আন্তর্জাতিকভাবে চাপের মুখে পড়েন সু চি।

উল্লেখ্য, গেল বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অভিযান শুরু করলে প্রায় সাত রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

আরও পড়ুন : 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়