• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

যুক্তরাজ্যে ধর্ষণের দায়ে বাংলাদেশি ইমামের ১৫ বছরের কারাদণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
|  ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ১০:০৩ | আপডেট : ২৯ এপ্রিল ২০১৮, ১০:২৭
ফাইল ছবি
যুক্তরাজ্যে এক তরুণীকে ধর্ষণের দায়ে বাংলাদেশি এক ইমামকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন লেস্টার ক্রাউন কোর্ট। ৬৮ বছর বয়সী ইমাম কমর উদ্দিনকে জুরি বোর্ড দুটি ধর্ষণ ও তিনটি যৌন নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্ত ঘোষণা পর আদালত এই রায় দেন। খবর লেস্টার মারকারির।

 ‘আধ্যাত্মিক চিকিৎসার’ সময় ১৯ বছর বয়সী ওই তরুণীকে ধর্ষণে ঘটনায় আদালত কমর উদ্দিনকে ভৎর্সনা করেছেন। আদালত কমরকে ‘একজন প্রতারক ও বর্ণচোরা’ অভিহিত করে বলেন, ‘আপনার ধর্মের জন্য আপনি অসম্মান বয়ে এনেছেন’।

কমর তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তবে তিনি ব্রিটেনে অবৈধভাবে বসবাস করছিলেন বলে স্বীকার করেছেন।

২০১৫ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ওই তরুণীর ওপর থেকে ‘অশুভ আত্মা’ দূর করতে কমর উদ্দিনকে ডাকা হয়। লেস্টারে ওই তরুণীর শোবার ঘরেই তাকে ধর্ষণ করেন কমর। তখন ওই তরুণীর বাবা ও অন্যান্য আত্মীয়স্বজন বাইরে অপেক্ষা করছিলেন। এমনকি কাউকে বললে ওই ‘অশুভ আত্মা’ আবার ফিরে আসতে পারে বলেও তরুণীটিকে ভয় দেখায় কমর।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ৫.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে কাঁপলো পৃথিবীর ভূস্বর্গ
--------------------------------------------------------

ওই ঘটনার পর কমরকে গ্রেপ্তার করা হয়। কিন্তু সে জামিন নিয়ে জার্মানি পালিয়ে যায়। তবে গেলো বছরের নভেম্বরে জার্মান সরকার কমরকে যুক্তরাজ্যের কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করে।

ওই মামলার একজন আইনজীবী রিচার্ড থ্যাচার বলেছেন, কমরকে দেশে ফেরত পাঠানো হতে পারে।

এদিকে রায় পড়ার আগে থেকেই আদালতে কাঁদছিলেন কমর উদ্দিন। এসময় বিচারক টিমোথি স্পেন্সার কমর উদ্দিনের কাছে জানতে চান, আপনি কাঁদছেন কেন?

জবাবে কমর বলেন, কারণ এটা আমাকে পীড়া দিচ্ছে।

বিচারক বলেন, আপনি নিজের জন্য দুঃখ অনুভব করছেন? কমর বলেন, আমার পরিবার, আমি ও বাকি সবার জন্য।

আদালত বলেন, আপনি শুধু নিজের জন্য কাঁদছেন, সম্ভবত আপনার পরিবারের জন্য। তবে অভিযোগকারী বা তার পরিবারের জন্য আপনি বিন্দুমাত্রও কাঁদছেন না।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে অবৈধ পথে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করেন কমর উদ্দিন। তখন থেকে তিনি অবৈধভাবে যুক্তরাজ্যে বসবাস করে আসছিলেন।
 

আরও পড়ুন : 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়