• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

সাংবাদিকের ওপর হামলা

ছাত্রলীগের জড়িত থাকার প্রমাণ দেন, বিচার করবো: কাদের

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৬ আগস্ট ২০১৮, ১৯:১৩ | আপডেট : ০৬ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৩০

সাংবাদিকদের ওপর হামলায় ছাত্রলীগের জড়িত থাকার প্রমাণ দিন, আমি বিচার করবো বললেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এই মন্তব্য করেন তিনি।

একটি পেপার কাটিং দেখিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখানকার দুই যুবকের একজন হলেন ঢাকা কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। সাংবাদিকদের ওপর হামলায় এই লোকগুলোও তো জড়িত থাকতে পারে।

এই আন্দোলনে অনুপ্রবেশ ঘটেছে দাবি করে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে কোনও আন্দোলনকারী নেই। যখনই আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর উসকানিমূলক বক্তব্যকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রকাশ্যে সমর্থন করেছেন, তখনই এটি দিবালোকের মতো সত্য হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ছাত্রছাত্রীদের অরাজনৈতিক আন্দোলনে অনুপ্রবেশ করে বিএনপি নোংরা রাজনীতি করেছে। বিএনপি সরকার হটানোর আন্দোলন করছে, এটি এখন পরিষ্কার।

---------------------------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : বসুন্ধরা আবাসিকে শিক্ষার্থীদের ওপর রাবার বুলেট, টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ
---------------------------------------------------------------------------------------

তিনি বলেন, গতকালের যে আন্দোলন, তা ছাত্রছাত্রীদের ছিল না। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর আহ্বানে সারাদেশ থেকে বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডাররা ঢাকায় আসে। শিবির-ছাত্রদলের ক্যাডাররা অস্ত্র নিয়ে শাহবাগ থেকে সাইন্সল্যাব পর্যন্ত পরে সেখান থেকে বিজিবি গেটে আসে। তাদের মূল লক্ষ্য ছিল আওয়ামী লীগ কার্যালয় হামলা করা।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, আমি বিশ্বাস করি না যে সাধারণ শিক্ষার্থীরা অস্ত্র নিয়ে রাস্তায় নেমেছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য নেই। আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে হামলা করারও কোনও এজেন্ডা নেই তাদের।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহন আইনটি সংসদীয় কমিটিতে উত্থাপিত হবে, সেখান থেকে যাচাই-বাছাই শেষে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হবে। সব অংশীজনের সঙ্গে আলোচনা করে আইনটি জাতীয় সংসদে পাশ করা হবে। এই আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। সর্বোচ্চ শাস্তির যে কথা বলা হয়েছে, সেটি অপরাধের মাত্রার ওপর নির্ভর করবে।

তিনি আরও বলেন, পেনাল কোডের ৩০২ ধারা মোতাবেক, মৃত্যুদণ্ডের বিধান থাকবে। কেউ যদি হত্যার উদ্দেশে দুর্ঘটনা ঘটায় এবং তা তদন্তে প্রমাণিত হয়, তাহলে মৃত্যুদণ্ডের বিধান কার্যকর হবে।

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে দুর্ঘটনায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর ক্ষেত্রে ৩০২ ধারার বিধান প্রযোজ্য হতে পারে বলেও জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, আগামী শনিবার থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ঢাকাসহ সারা দেশের বিআরটিএ’র প্রতিষ্ঠানগুলোয় লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন, গাড়ির ফিটনেস প্রদান ও নবায়ন কার্যক্রম প্রতিদিন সকাল নয়টা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত চালু থাকবে। বিশেষ পরিস্থিতিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

আরও পড়ুন : 

কে/ এমকে 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়