• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন

শাহাদাত বরণ করবো, কিন্তু ভোটের মাঠ ছাড়বো না: আরিফুল

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট
|  ৩০ জুলাই ২০১৮, ০৯:২৭ | আপডেট : ৩০ জুলাই ২০১৮, ০৯:৪৯
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মেয়র প্রার্থী  আরিফুল হক চৌধুরী তার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। 

সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে নগরের রায়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিনি ভোট দেন। 

পরে তিনি সাংবাদিকদের তিনি বলেন,  গত রাতে একটি কেন্দ্রের আলো নিভিয়ে ফেলা হয়, জনগণ সেখানে গেলে বন্দুক দেখিয়ে তাদের তাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ভোটের মাঠ ছাড়বো না, প্রয়োজনে শাহাদাত বরণ করবো। 

তিনি বলেন, জনগণ ভোট দিলে জনরায় মেনে নিতাম, জনগণের ভোট অন্য কেউ দিলে সেটা মেনে নেয়া যায় না। সুষ্ঠু, অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে বিএনপি অবশ্যই জয়লাভ করবে।
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন  : তিন সিটিতে চলছে ভোটগ্রহণ
--------------------------------------------------------

এর আগে সকাল ৮টা থেকে সিসিক নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডের ১৩৪টি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এই সিটিতে মেয়র পদে আরিফুল ছাড়াও আরও ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন আওয়ামী লীগের বদর উদ্দিন আহমদ কামরান (নৌকা), নাগরিক ফোরামের ব্যানারে স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী নগর জামায়াতের আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের (টেবিল ঘড়ি), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ডা. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন (হাত পাখা), সিপিবি-বাসদ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আবু জাফর (মই), সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. এহছানুল হক তাহের (হরিণ)।

এছাড়া সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৬২ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৩৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১৩৪টি কেন্দ্রে ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ ভোটার তাদের ভোট প্রদান করবেন।

জানা গেছে, এ নির্বাচনে ১৪ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ২৭টি টিম কাজ করছে। ১৩৪টি ভোট কেন্দ্রের প্রতিটিতে ২২ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে ৭ জন পুলিশ, ১২ জন আনসার সদস্য আগ্নেয়াস্ত্রসহ আনসার বাহিনীর একজন প্লাটুন কমান্ডার ও একজন এপিসি এবং একজন ব্যাটলিয়ান আনসার সদস্য থাকবেন।

তবে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র সমূহে ২ জন করে অতিরিক্ত ব্যাটালিয়ন আনসার সদস্য অস্ত্রসহ থাকবেন। এছাড়া ৯টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, মোবাইল টিম ৯টি, ৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ৯ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনের আইনশৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকবেন।

সিসিক নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে ১৩৪টি ভোট কেন্দ্রে ২৯৪৮ জন পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

এসএস 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়