• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

‘কোটা বাতিলের দাবি মেনে নিয়েছি, আবার প্রশ্ন কেন?’

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০২ মে ২০১৮, ১৭:০৩ | আপডেট : ০২ মে ২০১৮, ১৯:২৯
ছেলেমেয়েরা কোটা বাতিলের দাবি করেছে, আন্দোলন করেছে, আমি মেনে নিয়েছি। এ নিয়ে আবার প্রশ্ন কেন?

বললেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

সাংবাদিক শ্যামল দত্তের এক প্রশ্নের জবাবে বুধবার বিকেলে রাজধানীর গণভবনে সংবাদ সম্মেলন এসব কথা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এতদিনে আপনাদের বোধোদয় হলো কীভাবে। আন্দোলনে কারা মিশে যাচ্ছে, তখন সে প্রশ্ন তোলেননি। তখন তো আন্দোলনের পক্ষে কান্না করছিলেন।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর কোটার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। সবার অধিকার নিশ্চিত করার জন্যেই এই কোটা ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু হঠাৎ কথা নাই বার্তা নাই আন্দোলন শুরু হয়ে গেল। দেশে অচলাবস্থার সৃষ্টি হলো।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন :সমঝোতায় ছাত্রলীগের কমিটি, না হলে ভোট: প্রধানমন্ত্রী
-------------------------------------------------------- 

প্রথমে ওদের বোঝাতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু শোনেনি। রাস্তা বন্ধ করে অবরোধ করে ফেললো। আশপাশে হাসপাতাল আছে, রোগীদের সমস্যা, তারা পথ ছাড়েনি। 

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, পাবলিকে যারা পড়ে তাদের বিনে পয়সায় পড়ে। সরকারিভাবে তাদের ভুর্তুকি দেয়া হয়। আমি উদ্যোগ নিয়ে সরকারি নতুন বিশ্ববিদ্যায় প্রতিষ্ঠা করেছি। সাবজেক্ট এনে দিয়েছি। যাতে বিনে পয়সা সবাই পড়তে পারে। সবকিছু ভেবেই করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, কিন্তু সেই শিক্ষার্থীরাই দেখলাম আন্দোলন শুরু করেছি। 

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, প্রথম লিখিত পরীক্ষায় যারা অংশ নিয়ে পাস করছে, তারা সবাই মেধাবী। এরপরে কোটার প্রশ্ন আসে। মেধা কোটাতেই কিন্তু সব কিছু করা হচ্ছিল। কোথাও কোটা পাওয়া না গেলে মেধা তালিকাতেই পূরণ হয়েছে। আগে থেকেই এটা নিয়ম ছিল। সেটা ৭২-৭৭ শতাংশ হারেই হয়েছে। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছাত্রলীগের সম্মেলন গণতান্ত্রিকভাবেই হবে। বয়সসীমার মধ্যে থাকা যোগ্যরাই ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসবে।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্য সফরের বিষয়ে বলেন, কমনওয়েলথ সম্মেলনে জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকাতে বাংলাদেশের উদ্যোগ তুলে ধরা হয়েছে।

বিনিয়োগ করার জন্য বিদেশি উদ্যোক্তাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে জানান সরকারপ্রধান।

কমনওয়েলথ সম্মেলনে দু’টি গুরুত্বপূর্ণ রেজুলেশন হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সেখানে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়ন এবং প্রত্যাবর্তনের বিষয়ে ‍গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এই সফরকে আমার সরকারের কূটনৈতিক সাফল্য বলে মনে করি।

আরও পড়ুন : 

এসজে/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়