• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

তিন জঙ্গির সন্ধান দিলেই পাওয়া যাবে ৯২ কোটি টাকা

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ১০ মার্চ ২০১৮, ১৪:১২ | আপডেট : ১০ মার্চ ২০১৮, ১৪:৪৬
আন্তার্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ পাকিস্তানের শীর্ষ তিন জঙ্গি নেতার সন্ধান দিলেই প্রায় ৯২ কোটি টাকা (১১ মিলিয়ন ডলার) পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট এই পুরস্কার ঘোষণা করে। তিনজনের মধ্যে তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তানের (টিটিপি) শীর্ষ নেতা মোল্লা ফজলুল্লাহর সন্ধানের জন্য ৫ মিলিয়ন ডলার, জামাত-উল আহরারের নেতা আব্দুল ওয়ালির জন্য ৩ মিলিয়ন ডলার এবং লস্কর-ই ইসলাম এর নেতা মঙ্গল বাগের জন্য ৩ মিলিয়ন ডলার ঘোষণা করা হয়েছে। তিনটি সংগঠনই যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, মোল্লা ফজলুল্লাহ, আব্দুল ওয়ালি এবং মঙ্গল বাগ পাকিস্তান এবং যুক্তরাষ্টের জনগণের জন্য হুমকিস্বরূপ। সে কারণেই বৃহস্পতিবার এই পুরস্কার ঘোষণা করে। 

মোল্লা ফজলুল্লাহর তেহরিক-ই তালিবান পাকিস্তানের বাইরেও সক্রিয়। ২০১০ সালে নিউ ইয়র্কের টাইম স্কোয়ারে ব্যর্থ হামলা চেষ্টার দায়িত্ব স্বীকার করেছিল দলটি। আব্দুল ওয়ালির জামাত-উল আহরার এর এখনো পাকিস্তানের বাইরে হামলা চালানোর রেকর্ড নেই। তবে পাকিস্তানে প্রায়ই তারা হামলা চালায়। ২০১৬ সালে পেশোয়ারে যুক্তরাষ্ট্রের কনসুলেটে হামলা চালিয়ে দুই জনকে হত্যা করেছিল তারা। মঙ্গল বাগের সংগঠন সাম্প্রতিক সময়ে ন্যাটোর সরবরাহ বহরের ওপর হামলা চালিয়েছে। 

১৯৭৮ থেকে  ৯২ সালের মধ্যবর্তী সময়ে আফগানিস্তানে ব্যাপক অভিযান চালায় সোভিয়েত ইউনিয়ন। পাশতুন জনজাতির যোদ্ধারা সে সময় রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। পরবর্তীকালে তারাই তালেবান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।  রাশিয়াকে ঠেকাতে সেই সময় পাকিস্তান এবং আমেরিকা তালেবানকে সাহায্য করে। আফগানিস্তান ও পাকিস্তানে যেসব জঙ্গি সংগঠন গড়ে উঠেছে তার সবগুলোই ওই সময়ের পর সৃষ্টি হয়েছে এবং কোন না কোন ভাবে এরা তালেবানের সাথে সম্পৃক্ত। এছাড়া এসব সংগঠন আমেরিকা ও পাকিস্তান থেকে বিভিন্ন সময় সহযোগীতাও পেয়েছে। 

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক শহর মেক্সিকোর লস ক্যাবোস
--------------------------------------------------------

তবে সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং আফগানিস্তান জঙ্গিবাদে মদদ দেয়ার জন্য পাকিস্তান দায়ী করছে। কিন্তু এসব অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে দেশটি।    

ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হবার পর পাকিস্তানের বিষয়ে জঙ্গি মদদের অভিযোগে কঠোর অবস্থান নেন। 

আফগান তালেবান এবং হাক্কানি নেটওয়ার্কের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করতে এবং তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থতার অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্র গত জানুয়ারি মাসে পাকিস্তানকে দেয়া তাদের ২ বিলিয়ন ডলার সামরিক সহায়তা বন্ধ করে দেয়।  

আরও পড়ুন: 

এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়