• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

মুদ্রানীতির ধাক্কায় কুপোকাত পুঁজিবাজার

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ৩১ জানুয়ারি ২০১৮, ১৭:৩৬ | আপডেট : ৩১ জানুয়ারি ২০১৮, ১৮:৫১
চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের (জানুয়ারি-জুন) মুদ্রানীতি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গেলো দুইদিন বড় পতনে দেশের পুঁজিবাজার। এর মধ্যে আজ বুধবার দ্বিতীয় দফায় ধাক্কা লেগেছে।

সোমবার মুদ্রানীতি ঘোষণার দিন ঋণ প্রবাহে লাগাম টানার ইঙ্গিতে মঙ্গলবার মুখ থুবড়ে পড়ে বাজার। বুধবার তা আরো পতনে নেমেছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এদিন কমেছে আরও প্রায় ৮৮ পয়েন্ট। সূচকটি দিনশেষে অবস্থান করছে ৬ হাজার ৩৯ পয়েন্টে।

এদিন ঢাকার এ বাজারে ৩৩৫টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড অংশ নেয়। এর মধ্যে দর বাড়তে দেখা যায় মাত্র ৩১টি কোম্পানি ও ফান্ডের। আর দর হারায় ২৭৮টি কোম্পানি। এছাড়া দর অপরিবর্তিত আছে ২৬টি কোম্পানি ও ফান্ডের।

ডিএসইর অন্যান্য সূচকও এদিন নিম্নমুখী ছিল।

অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) দেখা যায়, সার্বিক সূচক সিএএসপিআই প্রায় ২৬৩ পয়েন্ট কমে ১৮ হাজার ৬৯১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। বুধবার এ বাজারেও বেশিরভাগ কোম্পানি দর হারায়। বাজারের সবগুলো সূচক ছিল নিম্নমুখী।

গত মঙ্গলবার ডিএসইর প্রধান সূচক দশমিক ৭৮ শতাংশ এবং সিএসইর সার্বিক সূচক প্রায় ১ শতাংশ পড়ে যায়।

এরই মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক জুনের মধ্যে এডিআর সমন্বয়ের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়।

ওই নির্দেশনা অনুযায়ী, এখন থেকে সাধারণ ব্যাংকগুলোর ঋণ-আমানত অনুপাত (এডিআর) হবে ৮৩ দশমিক ৫ শতাংশ; আর ইসলামী ব্যাংকের ক্ষেত্রে হবে ৮৯ শতাংশ।

অর্থাৎ আগে প্রচলিত ব্যাংকগুলো আমানতের বিপরীতে ৮৫ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংকগুলো ৯০ শতাংশ পর্যন্ত ঋণ বিতরণ করতে পারতো। এখন থেকে এটি কমিয়ে প্রচলিত ব্যাংকের জন্য সর্বোচ্চ ৮৩ দশমিক ৫০ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংকগুলোর জন্য সর্বোচ্চ ৮৯ শতাংশ নির্ধারণ করা হলো।

এ নির্দেশনার পর আজ সকাল থেকেই দেশের দুই পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রবণতা দেখা যায়।

তবে মুদ্রানীতির এই ধাক্কা দীর্ঘস্থায়ী হবে না বলে মনে করেন বাজার বিশ্লেষকরা।

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ আবু আহমেদ আরটিভি অনলাইনকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক আমানত ও ঋণের অনুপাত সমন্বয়ের নির্দেশ দিয়েছে। ব্যাংকগুলোকে নির্দিষ্ট সময়ে এ নির্দেশনা মানতে হবে।

তিনি জানান, শেয়ারবাজারে এই মুদ্রানীতি ও এডিআর সমন্বয়ের সাময়িক প্রভাব ফেলতে পারে। তবে তা দীর্ঘস্থায়ী হবে না।

এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়