• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫

অতিবৃষ্টি বা বন্যা কী মানুষের কৃতকর্মের ফল?

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ২৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৭:১৩ | আপডেট : ২৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৮:১০
আরটিভিতে সরাসরি প্রচারিত হয় ইসলাম নিয়ে প্রশ্নোত্তরমূলক বিশেষ অনুষ্ঠান ‘শরিফ মেটাল প্রশ্ন করুন। এ অনুষ্ঠানে কুরআন ও হাদিসের আলোকে দর্শক-শ্রোতাদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেয়া হয়। এবারের পর্বে উত্তর দিয়েছেন  বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ হাফিজ মুফতি কাজী মোহাম্মাদ ইব্রাহিম। 

প্রশ্ন: লাগাতার বৃষ্টি ও বন্যাকে অনেকেই বলে থাকে কৃতকর্মের ফল। আবার কেউ কেউ বলে থাকে আমরা পরিবেশ দূষণ করছি এবং গাছপালা বেশি কেটে ফেলেছি বলে আজকে এভাবে বৃষ্টি হচ্ছে। এ ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বক্তব্য কী? 

উত্তর: রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একটি হাদিস রয়েছে, পৃথিবীতে কোনো বছর আগের বছরের চেয়ে কম বা বেশি বৃষ্টি হবে না, প্রতিবছর এক সমান বৃষ্টিপাত থাকে, কিন্তু দেশ ভেদে সেটি কমবেশি হয়। হয়তো এক বছর দেখা যাবে ভারতে বেশি বৃষ্টিপাত বাংলাদেশে কম, আরেকবছর দেখা যাবে বাংলাদেশে বেশি ভারতে কম। টোটাল পানির পরিমাণটা সারা পৃথিবীতে একসমান থাকবে। না হলে মাটি গ্রহ সমস্যাগ্রস্ত হবে।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ঝড় বৃষ্টিতে যে দোয়া পড়তে হয়
--------------------------------------------------------

আরেকটা ব্যাপার হল, মানুষ যদি আল্লাহর হুকুম আহকাম মেনে চলত তাহলে আল্লাহ তায়ালা রাতে বৃষ্টি দিতেন আর দিনে মানুষেরা কাজকর্মে ব্যস্ত থাকতেন। এখানেও মানুষের কর্মের সাথে সিস্টেমের একটা মিল থাকত। পৃথিবী বা কোনো রাষ্ট্রে যদি বিপর্যয় সৃষ্টি হয় তাহলে সেগুলোর পেছনে মানুষের কর্মকান্ড যেমন দায়ী তেমনি গাছপালা কেটে ফেলা, নদনদী নষ্ট করা এগুলোও সমান দায়ী।

আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, পৃথিবীকে মানুষের বসবাসের উপযোগী করে সৃষ্টি করে তোলার পরে এর ভারসাম্য নষ্ট করে দিও না, ফাসাদ সৃষ্টি করো না। মানুষ যখন আল্লাহর হুকুমের বিরুদ্ধে চলে যায় তখন নৈতিকভাবে ফাসাদ সৃষ্টি করা হয়, আর প্রকৃতিগত যে ভারসাম্য নষ্ট করে তখন আরেকটা ফাসাদ সৃষ্টি করে। তবে আমার মনে হয় না আমার ছেলেবেলার তুলনায় এই বছর তার চেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন : 

কেএইচ/ এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়