• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

ঋত্বিকের তোতলামির সমস্যা ছিল

বিনোদন ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৮ | আপডেট : ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৫৫
ছবি: সংগৃহীত
বলিউড তারকা ঋত্বিক রোশনের ছোটবেলায় তোতলামির সমস্যা ছিল। নিজেই চেষ্টার মধ্য দিয়ে সেই সমস্যা থেকে বেড়িয়ে আসেন এই তারকা। নিজের ব্লগে এক পোস্ট লিখে এই তথ্য জানালেন ঋত্বিকের দিদি সুনাইনা রোশন।

ঋত্বিকের দিদি সুনাইনা বলেন, ‘আমার মনে আছে, হৃতিকের যখন ১৩ বছর বয়স, সে ঘণ্টার পর ঘণ্টা এক নাগাড়ে চিৎকার করে পড়তো। সে নিজের কথা রেকর্ড করত, তারপর নিজেই বারবার শুনে দেখত, কোথায় ভুল হচ্ছে। বারবার অনুশীলন করতো। এভাবে তোতলামি সমস্যা কাটিয়ে উঠেছিল।’

সবার কাছে ঋত্বিক রোশন সুপারস্টার হলেও সুনাইনার কাছে তার ভাইয়ের নাম ‘ডুজ্ঞু’। সুনাইনা জানান, ডুজ্ঞু দুই বছরের ছোট হলেও সব সময় দিদিকে আগলে রেখেছেন বড় ভাইয়ের মতো।

-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : প্রিয়াঙ্কার হবু শ্বশুরের কোম্পানি দেউলিয়ার পথে
-------------------------------------------------------

ছোটবেলা থেকেই ঋত্বিকের নাচের প্রতি অনেক আগ্রহ। মাইকেল জ্যাকসনের খুব ভক্ত ছিলেন। ঋত্বিক যখন অনার্স শেষ করেন, বাবা তখন বাইরে পাঠানোর পরিকল্পনা করছেন। সেই সময় ঋত্বিক বাবাকে জানান, সিনেমার নায়ক হতে চান।

অভিনয়জগতে আসার অনেক আগে থেকেই ঋত্বিক নিজেকে প্রস্তুত করেন। এর জন্য কঠোর চর্চা করেন। ছোটবেলা থেকেই বেশ আত্মনির্ভরশীল ছিলেন তিনি। কখনও বিজ্ঞান, কখনও বিভিন্ন ধরনের বই ঘাঁটাঘাঁটি করে নিজেই শেখার চেষ্টা করতো। নিজে নিজে প্রচুর অনুশীলন করতো ঋত্বিক।

সুনাইনা জানান, একবার ঋত্বিকের মেরুদণ্ডে খিঁচুনির মতো রোগ ধরা পড়ে। ডাক্তার বললেন, এটি জিনগত সমস্যা। এবার নাচ বন্ধ করে দিতে হবে! নতুবা যেকোনো সময় হুইলচেয়ারে স্থায়ীভাবে বসতে হবে তাকে। নিজের আত্মবিশ্বাসের কাছে জয়ী হন ঋত্বিক।

ব্লগে সুনাইনা সবশেষে লিখেছেন, ডুজ্ঞু, তুই আমার জীবনের সবচেয়ে শ্রেষ্ঠতম উপহার, আমার সবচেয়ে কাছের বন্ধু তুই। আমার জীবনের অর্থে একটা সুবর্ণরেখার মতো তুই আমাকে ঘিরে আছিস। আমি তোকে অতীতে ভালোবেসেছি, বর্তমানেও বাসি, আর ভবিষ্যতেও তোকে একইভাবে ভালোবাসবো।

দিদির এমন পোস্ট দেখে বেশ আবেগ-আপ্লুত হয়ে পড়েন ঋত্বিকও। ব্লগটি শেয়ার করে নিজের টুইটারে ঋত্বিক লিখেছেন, ‘আমার মিষ্টি বোন আমাকে স্মৃতির সড়কে নিয়ে গেছে। তোমাকেও ভালোবাসি, দিদি!’

আরও পড়ুন :

পিআর/এম

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়