logo
  • ঢাকা রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬
evaly

অধিনায়ক থেকে খলনায়ক

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ৩০ জুন ২০১৯, ১৪:২৮ | আপডেট : ৩০ জুন ২০১৯, ১৫:১৫
বিশ্বকাপ-২০১৯
আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবাদিন নাঈব || ছবি- সংগৃহীত
বিশ্বকাপের আগে তিন ফরম্যাটের অধিনায়কের পরিবর্তন আনা হয়। আজগর আফগানের বদলে গুলবাদিন নাঈবকে দেয়া হয় দলের দায়িত্ব। বিশ্বকাপ চলাকালীন টিম ম্যানেজমেন্টে পরিবর্তন ও ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদকে দল থেকে বাদ দিয়ে শিরোনামে চলে আসে আফগান দল। এর পর নিজে ব্যাট ও বল করার সময় রিভিউ নিয়েও সমালোচনায় পড়তে হয় গুলবাদিনকে। পাশাপাশি মিডল অর্ডার হয়েও ওপেনার হিসেবে ব্যাট করতে নেমে বারবার হয়েছেন ব্যর্থ। ৮ ম্যাচে সব মিলিয়ে ৯ উইকেট তুললেও মাত্র ১৮৯ রান তুলতে পেরেছেন আফগানিস্তান দলপতি।

প্রতিটি ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপ থেকে আগেই ছিটকে যায় আফগানরা। শনিবার পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নেমে দুর্দান্ত লড়াই চালিয়ে যায় গুলবাদিনের দল। টস জেতার পর ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এই অলরাউন্ডার। ওপেন করতে নেমে মাত্র ১৫ রান তুলতে সক্ষম হন। যদিও তার দলের মোট সংগ্রহ ছিল ৯ উইকেট হারিয়ে ২২৭ রান।

ইনিংসের শুরুতেই পাকিস্তানের ওপেনার ফখর জামানকে ফিরিয়ে লড়াইয়ের আভাস দেন মুজিব-উর-রহমান। যদিও পাকিস্তানের উপরের দিকের ব্যাটসম্যানরা সামলে নিয়েছিলেন। যেভাবে রান উঠছিল, মনে হচ্ছিল দ্রুতই শেষ হয়ে যাচ্ছে ম্যাচ। 

আবারও স্পিন জাদু দেখান মোহাম্মদ নবী। সঙ্গে যোগ দেন মুজিব, রশীদ খান ও সামিউল্লাহ শিনওয়ারি। ডট বলের পাশাপাশি নিয়মিত উইকেট পড়ছিল। এতে চাপে পড়ে যায় ১৯৯২ সালের চ্যাম্পিয়নরা। দলীয় সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮২ রান। জিততে হলে পাকিস্তানের দরকার আরও ৪৬ রান। হাতে রয়েছে ৩০ বল।

হাতে রয়েছে সামিউল্লাহ শিনওয়ারির আরও দুই ওভার। যিনি ৮ ওভার বল করে ৩২ রান দিয়েছেন। যার মধ্যে ২৭টি বল ছিল ডট। এই লেগব্রেকারের বলে মাত্র দুটি বাউন্ডারিই মারতে সক্ষম হয়েছিল পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা।

ঠিক এমন সময়ে বল নিয়ে হাজির নাঈব। আফগান অধিনায়কের ওই ১ ওভারে ১৮ রান তুলে নিয়ে ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় পাকিস্তানের অলরাউন্ডার ইমাদ ওয়াসিম।

শেষ ওভারে আবারও বল করতে এলেন নাঈব। ৬ বলে ৬ রান দরকার। তৃতীয় বলে রানআউটের সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি নাঈব। যেখানে একটিও রান হয় না, সেখানে দুই রান তুলে নিলেন ইমাদ। চতুর্থ বলে চার মেরে ম্যাচ নিজেদের করে নিলো পাকিস্তান। অধিনায়ক থেকে খলনায়ক হয়ে গেলেন নাঈব।

ম্যাচ হারের পর ক্ষিপ্ত আফগান সমর্থকরা গ্যালারি ও স্টেডিয়ামের বাইরে হামলা চালিয়েছেন পাকিস্তানের সমর্থকদের ওপর।

অন্যদিকে নাঈবের এমন কর্মকাণ্ড দেখে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ তুলেছেন। অনেকেই দাবি করছেন, স্বেচ্ছাচারিতার জন্য অধিনায়ক পদ থেকে বাদ দেয়ার জন্য। চলছে নানা ধরনের ঠাট্টা-তামাশাও।

ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের কাছে নিজের পরিকল্পনার কথাটি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি ভাবছিলাম- দলের সব বোলার তো আর ওদের লক্ষ্য না। প্রত্যেক দলেরই নিজেদের পরিকল্পনা থাকে। ৪৬তম ওভারে মোটেও ভালো করতে পারিনি আমি।

এই ম্যাচেই মাত্র ২ ওভার বল করতে পেরেছেন হামিদ হাসান। চোটের কারণে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন এই পেসার। 

নাঈব বলেন, হামিদ হাসান ফিট থাকলে হয়ত ৩-৪ ওভারের বেশি বল করতাম না। কারণ এখানে বল করার মতো পর্যাপ্ত গতি নেই আমার।

সংবাদ সম্মেলনে ম্যাচেও কৃতিত্ব পাকিস্তান দলকেই দিয়েছেন। আফগানিস্তান অধিনায়ক বলেন, আমার মনে হয় চাপটা মূলত পাকিস্তান দলেরই ছিল। যেভাবে তারা খেলেছে এবং ম্যাচটি নিজেদের করে নিয়েছে, অবশ্যই তাদের প্রশংসা করা উচিৎ। 

ওয়াই/পি

evaly
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়