logo
  • ঢাকা শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬
evaly

পাকিস্তান-ভারত ম্যাচ পরিত্যক্ত হলে যত লোকসান

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৫ জুন ২০১৯, ২১:৩৯ | আপডেট : ১৬ জুন ২০১৯, ১৩:০১
বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় ম্যাচ ধরা হয় ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচটাকে। দুই দেশের রাজনৈতিক সহিংসতা আর সীমান্তে উত্তেজনার কারণেই মূলত এই ম্যাচ ঘিরে বছরকে বছর উত্তেজনা এভাবেই চলে আসছে। তবে সীমান্তের উত্তেজনা বিশ্বকাপের এই লড়াইকে খুব একটা প্রভাবিত করতে পারেনি।

এর আগে বিশ্বকাপে সাতবারের দেখায় একবারও জিততে পারেনি পাকিস্তান। তবু কেন উত্তেজনা এই ম্যাচকে ঘিরে। আগের সাতটা ম্যাচই একপেশে জিতে নিয়েছিল ভারত।

এবারও কি তবে একপেশে? এই প্রশ্নটা আপাতত তোলা থাক। তবে আরেকটা প্রশ্নের উঁকি দিচ্ছে, এই ম্যাচও কি ভেসে যাবে বৃষ্টিতে? বৃষ্টির উপর তো আর কারও হাত নেই। হাত না থাকলেও ভাবাচ্ছে আইসিসি আর বিশ্বকাপ সম্প্রচারক প্রতিষ্ঠান ‘স্টার স্পোর্টস’কে।

বিশ্বকাপের এখনও মাঝপথ শেষ হয়নি। তার আগেই চারটা ম্যাচ ভেসে গেল বৃষ্টিতে। তাতে আপনি বলতেই পারেন, এটা কি বর্ষাকাপ? আপাতত বিশ্বকাপই বলি সম্মানার্থে।

তবে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটা ভেসে গেলে এই সম্মান আর থাকবে না স্ট্রার স্পোর্টসের। বৃষ্টির কারণে ম্যাচটি পণ্ড হলে প্রচুর আর্থিক লোকসান গুনতে হবে সম্প্রচার চ্যানেলের বীমা প্রতিষ্ঠানগুলোর।

গত চার ম্যাচ পণ্ড হওয়াতেও অনেক বড় অঙ্কের ক্ষতি পূরণ দিতে হয়েছে বিমা প্রতিষ্ঠানগুলোকে। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমগুলো জানায়, ওই চার ম্যাচের জন্য বিমা প্রতিষ্ঠানগুলোকে গুনতে হয়েছে ১৮০ কোটি রুপি! আর ওই চার ম্যাচের জন্য স্টার স্পোর্টসের দাবি, তাদের ক্ষতি হয়েছে ১৪০ কোটি রুপি। তাই চ্যানেলটির বীমা প্রিমিয়াম ঠেকেছে ৩০০ শতাংশে গিয়ে। এমন অবস্থায় বীমা কোম্পানিগুলোও নিতে চাচ্ছে না ঝুঁকি! এ যেন মরার উপর খাঁড়ার ঘা।

শেষ পর্যন্ত যদি পাক-ভারতের লড়াই বৃষ্টিতে থেমে যায় তবে বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১৬০ কোটিরও বেশি লোকসান গুনতে হবে স্টার স্পোর্টস ও বিজ্ঞাপন কোম্পানিগুলোকে। ম্যাচটা ভেসে গেলে টিকিট বিক্রির অর্থটাও লোকসানের খাতায় যাবে আইসিসির।

এমআর/পি

evaly
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়