• ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

বিশ্বকাপে ভারতকে হারাতে চান সরফরাজ

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৮ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৪৭ | আপডেট : ০৮ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৫৮

দরজায় কড়া নাড়ছে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ। আর মাত্র ৫১ দিন পর ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের দশটি মাঠে প্রায় দেড় মাস ধরে চলবে এ ক্রিকেট লড়াই। যেখানে দশটি দেশ লড়াই করবে একটি শিরোপার জন্য। 

ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে বসবে ক্রিকেট বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর। এ আসরের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচের স্বীকৃতি পেয়েছে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার প্রথম রাউন্ডের ম্যাচটি। যা আগামী ১৬ জুলাই ইংল্যান্ডের ওল্ডট্রাফোডে অনুষ্ঠিত হবে।

রাজনৈতিক কারণে এ দুটি দেশ একে অপরের মুখোমুখি না হলেও আইসিসির মেগা ইভেন্টে মুখোমুখি হতে বাধ্য দেশ দুটি। তাই বিশ্বকাপে সবার দৃষ্টি ১৬ জুলাইর ম্যাচটির দিকে। দর্শকদের আগ্রহের কমতি নেই ম্যাচটি ঘিরে। 

তবে ম্যাচের আগের পরিসংখ্যান বলছে বিশ্বকাপের মঞ্চে ফেভারিটের তকমা নিয়েই নামবে ভারত। কারণ এখন পর্যন্ত ওয়ানডে ফরমেটের বিশ্বকাপ মঞ্চে খেলা ৬টি ম্যাচের সবগুলোতে জয় পেয়েছে ভারত। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চারটি ম্যাচ তালিকায় আনলে ম্যাচ সংখ্যা দাঁড়াবে দশটিতে। 

বিশ্বকাপের এ ম্যাচটি নিয়ে পাকিস্তান অধিনায়ক কি ভাবছেন? সম্প্রতি এ বিষয়ে পাকিস্তানের একটি টিভি চ্যানেলে মুখ খুলেছিলেন দেশটির বিশ্বকাপ অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। যার হাত ধরেই চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে ভারতে এক প্রকার উড়িয়ে দিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা ঘরে তোলে পাকিস্তান। 

ম্যাচটি নিয়ে তিনি বলেন, অধিনায়ক হিসেবে আমার লক্ষ্য ভারতকে হারানো। দেশের মানুষ যে কোনও পরাজয় ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবে কিন্তু ভারতের বিপক্ষে অবশ্যই আপনাকে জিততে হবে। একই অবস্থা সীমানার ওপারেরও। 

সরফরাজ বলেন, আমরা শুধু ভারত নয় একইসঙ্গে টুর্নামেন্টের সব দলের বিপক্ষেই সমান মনোযোগী থাকবো। অবশ্যই ভারতকে হারানোর জন্য খেলবো, বাকিদেরও ছাড় দেয়া হবে না।

বিশ্বকাপ নিয়ে পাক অধিনায়ক বলেন, কোনও পরিস্থিতিতেই বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলা সহজ কাজ নয়। আমি মনে করি অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ভারত ও পাকিস্তান বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলবে। এরপর আমরা এমন কিছু করার চেষ্টা করবো যা দেশের মানুষ আজীবন মনে রাখবে।

আগামী ৩০ মে ইংল্যান্ডে শুরু হবে বিশ্বকাপ। আর পাকিস্তান ৩১ মে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু করবে। 

তবে বিশ্বকাপ ৩০ মে শুরু হলেও বিশ্বকাপের প্রায় একমাস আগে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে পাকিস্তান। বিশ্বকাপের আগে ইংল্যান্ডের মাঠে খেলায় আবহাওয়া এবং কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারবে পাকিস্তান।

ওয়ানডে বিশ্বকাপের ফলাফল
১৯৯২ বিশ্বকাপ:
ভারতের দেয়া ২১৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৭৩ রানে অলআউট হয়ে যায় ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান। ম্যাচটিতে ভারত ৪৩ রানে জয় পায়। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান শচীন টেন্ডুলকার। যদিও শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তোলে। 

১৯৯৬ বিশ্বকাপ: কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের করা ২৮৭ রানের জবাবে আমির সোহেলের নেতৃত্বে থাকা পাকিস্তান ২৪৮ রানে গিয়ে থামে। ভারত ৩৯ রানে জয় পেয়ে সেমিতে জায়গা করে নেয়। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের নভোজিৎ সিং সিধু।

১৯৯৯ বিশ্বকাপ: ভারতের করা ২২৭ রানের জবাবে ১৮০ রানে আটকে যায় ওয়াসিম আকরামের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান। ভারত জয় পায় ৪৭ রানে। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের ভেঙ্কটেস প্রসাদ। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান এ বিশ্বকাপে রানার্সআপ হয়।

২০০৩ বিশ্বকাপ: ওয়াকার ইউনুসের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ২৭৩ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ভারত ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌছে যায়। আর জয় পায় ৬ উইকেটের। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের শচীন টেন্ডুলকার। 

২০১১ বিশ্বকাপ: ভারতের চন্ডিগড়ে মুখোমুখি ম্যাচে আগে ব্যাট করে ভারত ২৬০ রান সংগ্রহ করে। শহিদ আফ্রিদির নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান ২৩১ রানে অলআউট হয়ে গেলে ভারত ২৯ রানের জয় পায়। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের শচীন টেন্ডুলকার। শেষ পর্যন্ত ভারত দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তোলে। 

২০১৫ বিশ্বকাপ: বিরাট কোহলির সেঞ্চুরিতে ভর করে ভারত ৩০০ রান সংগ্রহ করে। মিসবাহ’র পাকিস্তান ২২৪ রানে অলআউট হয়ে যায়। ফলে ভারত ৭৬ রানের জয় পায়। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের বিরাট কোহলি।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফলাফল
২০০৭ বিশ্বকাপ:
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরের ফাইনালে দেখা হয় ভারত-পাকিস্তানের। টান টান উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে ৫ রানে জয়লাভ করে প্রথম শিরোপা ঘরে তোলে ভারত। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের ইরফান পাঠান।

২০১২ বিশ্বকাপ: গ্রুপ পর্বের ম্যাচে পাকিস্তানের করা ১২৮ রানের জবাবে ভারত দুই উইকেট হারিয়ে নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌছে যায়। ভারত জয় পায় ৮ উইকেটে। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের বিরাট কোহলি।

২০১৪ বিশ্বকাপ: মিরপুরে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে পাকিস্তান আগে ব্যাট করে ১৩০ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ভারত ৩ উইকেট হারিয়ে নির্ধারিত লক্ষ্যে পৌছে যায়। ভারত সাত উইকেটে জয় পায়। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের অমিত মিশরা। 

২০১৬ বিশ্বকাপ: ভারত টসে জিতে পাকিস্তানকে ফিল্ডিংয়ে পাঠালে ১৮ ওভারের ম্যাচে পাকিস্তান ১১৮ রান করতে সক্ষম হয়। জবাবে ভারত ৪ উইকেট হারিয়ে ১১৯ রান করে। ম্যাচটিতে ভারত ৬ উইকেটে জয়লাভ করে। প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ভারতের বিরাট কোহলি। 

এএ/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়

আজকের প্রশ্ন :

  • হ্যাঁ
    ক্লিক করুন
  • না
    ক্লিক করুন
  • মন্তব্য নেই
    ক্লিক করুন
মোট ভোট সংখ্যা : ৩০