• ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

ক্রিকেট মাঠে পাকিস্তানের বিশ্ব জয়ের দিন

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৫ মার্চ ২০১৯, ১২:৫২ | আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০১৯, ১১:৩৬

২৫ মার্চ ১৯৯২। ক্রিকেট বিশ্বে অন্য উচ্চতায় উঠে পাকিস্তান। যার নেতৃত্বে ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।এদিন ক্রিকেটের জন্মদাতা ইংল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ট্রফি উচিয়ে ধরে পাকিস্তান। এর আগে এশিয়ার প্রথম দেশ হিসেবে ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। ব্যবসায়িক অংশীদারীত্বের কারণে এ বিশ্বকাপটির নাম হয় বেনসন অ্যান্ড হেজেস বিশ্বকাপ। 

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ণ ক্রিকেট গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে পাকিস্তান ২২ রানে জয়লাভ করে। এদিন টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান অধিনায়ক ইমরান খান। অপরদিকে ইংল্যান্ডের অধিনায়ক ছিলেন গ্রাহাম গুচ। 

পাকিস্তান দলে আমির সোহেল, রমিজ রাজা, ইমরান খান, জাভেদ মিয়ানদাদ, ইনজামাম উল হক, ওয়াসিম আকরাম, মঈন খান, ইজাজ আহমেদ, মুস্তাক আহমেদ, আকিব জাভেদ যেমন ছিলেন তেমনি ইংল্যান্ড দলে ছিলেন গ্রাহাম গুচ, ইয়ান বোথাম, অ্যালেক স্টুয়ার্ট, গ্রাহম হিক, নিল ফেয়ারব্রাদার, ক্রিস লিউস, ডেরেক ফ্রিঙ্গেলের মতো তারকারা। 

অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হওয়ায় ৮৭ হাজার ১৮২জন দর্শক ম্যাচটি উপভোগ করেন। 

ব্যাটিংয়ে নেমে ডেরেক ফ্রিঙ্গেলের তোপে পড়ে ২৪ রানেই দুই উইকেট হারিয়ে ফেলে পাকিস্তান। তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক ইমরান খান ও বড় মিয়া খ্যাত জাভেদ মিয়ানদাদ ১৩৯ রানের সময়োপযোগী জুটি উপহার দেন। ইমরান ১১০ বলে ৫ চার ও ১ ছয়ে ৭২ এবং মিয়ানদাদ ৯৮ বলে ৪ চারে ৫৮ রান করে বিদায় নেয়। এরপর তরুণ ইনজামামের ৩৫ বলে ৪ চারে ৪২ রান ও ওয়াসিম আকরামের ১৮ বলে দ্রুতগতি ৩৩ রানের কল্যাণে ২৪৯ রানের লক্ষ্য দাঁড় করায় পাকিস্তান। 

ইংল্যান্ডের হয়ে ফ্রিঙ্গেল ৩টি, বোথাম ও ইলিংওয়ার্থ একটি করে উইকেট লাভ করেন। 

বিশ্বকাপ ট্রফি ছোঁয়ার লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে মুস্তাক, ওয়াসিম ও আকিব জাভেদের তোপে ৬৯ রানে প্রথম চার উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় ইংল্যান্ড। এরপর পঞ্চম উইকেটে নেইল ফেয়ারব্রাদার ও অ্যালান ল্যাম্ব ৭২ রানের জুটি গড়ে ধাক্কা সামাল দেন। দলীয় ১৪১ রানে ল্যাম্ব ও লিউইসকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখিয়ে ইংল্যান্ডকে জোড়া ধাক্কা দেন ওয়াসিম আকরাম। অপরপ্রান্তে থাকা ফেয়ারব্রাদার তখনো স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন ইংলিশদের। কিন্তু দলীয় ১৮০ রানে আকিবের বলে উইকেটের পেছনে ৬২ রান করে বিদায় নিলে স্বপ্ন আস্তে আস্তে ফিঁকে হয়ে আসে। 

শেষ দিকে রেভি, ফ্রিঙ্গেল, ইলিংওয়ার্থরা ছোট ছোট সংগ্রহ করে চেষ্টা করলেও আর শিরোপা ছোঁয়া হয়নি ইংলিশদের। ইমরান খান তার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শেষ উইকেট হিসেবে ইলিংওয়ার্থকে রমিজ রাজার ক্যাচ বানিয়ে ফেরত পাঠানোর সঙ্গে সঙ্গে উল্লাসে মাতে পুরো স্টেডিয়ামে থাকা পাকিস্তানের সমর্থকরা। 

ফাইনালে ১৮ বলে দ্রুতগতির ৩৩ রান ও বোলিংয়ে ৪৯ রানে ৩ উইকেট নিয়ে অলরাউন্ড পারফর্ম করায় প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান ওয়াসিম আকরাম। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে ব্যাট হাতে অসাধারণ পারফর্ম করায় নিউজিল্যান্ডের মার্টিন ক্রো প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্টের শিরোপা পান। 

আরও পড়ুন :

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়