logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

মুশফিকের সঙ্গে দারুণ বোঝাপড়া মিরাজের

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ২৩:২৪ | আপডেট : ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ২৩:২৯
মুশফিকের সঙ্গে দারুণ বোঝাপড়া মিরাজের
ছবি- সংগৃহীত
ইন্দোরে তিন দিনেই শেষ হয়েছে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট। তাতে অবশ্য কলকাতা টেস্টের প্রস্তুতির জন্য দু’দিন বেশি সময় পাওয়া গেছে। কথাটা যত সহজে বলা যাচ্ছে, মেনে নেয়া ততটা সহজ না।

প্রথম টেস্টে ১৩০ রান ও ইনিংস হারের লজ্জা নিয়ে কলকাতার উদ্দেশে রওনা করবে টিম বাংলাদেশ। তার আগে যে দুইদিন ইন্দোরে থাকা হয়েছে, কাজে লাগানো হয়েছে গোলাপি বলে বাতির নিচে অনুশীলন করে।

আজ সোমবার ছিল শেষ দিন। অনুশীলনে বেশ মনযোগী ছিলেন সবাই। দলের ব্যাটিং কোচ নীল ম্যাকেঞ্জি না থাকলেও বাকিদের তত্ত্বাবধানে প্রস্তুতি সেরে নিয়েছে মুশফিক-মিরাজরা।

এই মুশফিক মিরাজের জুটিটাই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের জুটি (৫৯) ছিল ইন্দোরে দ্বিতীয় ইনিংসে। তবে মিরাজের আফসোস, সেদিন আর কিছুক্ষণ থাকতে পারেননি। তাহলে আরও কটা রান আসতো।

‘আমরা যারা আছি লোয়ার অর্ডারের ব্যাটসম্যান, গত ম্যাচে দেখেন মুশফিক ভাই ভালো ব্যাটিং করছিল আমরা লোয়ার অর্ডার সাপোর্ট দিতে পারিনি। ভালো সাপোর্ট দিলে উনি হয়তো আরও কিছু রান করতো। এটা নিয়ে আমাদের কথা হয়েছে। কোচও কথা বলেছে বিশেষ করে আমার সঙ্গে এবং যারা পেস বোলার আছে তাদের সঙ্গে। আমরা যেন একজন ভালো ব্যাটসম্যান ক্রিজে থাকলে তাকে সাপোর্ট দিতে পারি, রান না করলেও অন্তত ২০-৩০ টা বল খেলে সমর্থন দিতে পারি।’ সোমবার ইন্দোরে হোলকায় কথাগুলো বলেন মিরাজ।

চাপের মুখে সেদিন বড় রান করতে না পারলেও মিরাজের ব্যাটিংয়ে সন্তুষ্ট মুশফিক। দুইজনের বড় জুটি গড়ার কারণ হিসেবে মিরাজ বলেন, আমাদের ভালো বোঝাপড়াটার কারণেই এমনটা।

‘মুশফিক ভাই সবসময় আমাকে ব্যাটিং নিয়ে বলে, একটা জিনিস দেখেন বাংলাদেশ টিমের যতগুলো বড় জুটি হয়েছে বেশিরভাগই মুশফিক ভাইয়ের সঙ্গে হয়েছে। ওয়ানডে বলেন টেস্ট বলেন ওনার সঙ্গেই। ওনার সঙ্গে আমার বোঝাপড়া ভালো হয়। উনি আমাকে বলছিলেন ব্যাটিং ভালো হচ্ছে কিন্তু যত ভালো টিমের সাথে খেলবো ভালো বোলার বেশি থাকবে। যতটা নিজে সার্ভাইব করা যায়। আগে থেকে নিজেকে প্রিপেয়ার করতে হবে, হতে হবে মানসিকভাবেও।’

ইন্দোর যেমন তেমন কেটে গেল। এবার মিশন কলকাতা। এখানে যে আরেকটা বাড়তি চাপ গোলাপি বলে প্রথমবারের মতো ফ্লাড-লাইটের আলোয় খেলা। গোলাপি বলে এর আগে খেলার অভিজ্ঞতা নেই বাংলাদেশের। অভিজ্ঞতা নেই ভারতেরও।

কেমন হতে পারে গোলাপি বলের আচরণ?

মিরাজ বলেন, আজকে আমি ব্যাটিং করেছি। বল একটু মুভ করতেছিল। আমার কাছে মনে হয় বলটা একটু ভারি, ব্যাটে লাগলে খুব দ্রুত যায়। মনে হচ্ছে প্রথম দিকে গোলাপি বলে সুইং থাকতে পারে একটু বেশি, অনেক সময় কাটও করতে পারে। দেখলাম মাঝে মাঝে বল কাটও করছে। তারপরও ম্যাচে গেলে কেমন হয় আসলে সবারই অভিজ্ঞতা নাই।

শুধু পেসাররাই নয়, সুবিধা পেতে পারে স্পিনাররাও উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমার কাছে মনে হয় স্পিনাররা স্কিট করতে পারবে বেশি, বাউন্সও থাকতে পারে, টার্নও থাকতে পারে। যতটুকু অনুশীলন করলাম মনে হচ্ছে বলটা ফরওয়ার্ড হচ্ছে, বাউন্স থাকতেছে স্পিনাদের জন্য। এটা হয়তো বাড়তি সুবিধা হবে স্পিনারদের জন্য। যখন সিমে যায় অনেকসময় বোঝা যায় আবার অনেক সময় সিম বোঝা যায়না। একটু হয়তো স্পিনাররা সিমও বুঝবোনা এখানে হয়তো বাড়তি সমস্যা স্পিনারদের জন্য।

দলের সবার জন্যই অপেক্ষা করছে নতুন অভিজ্ঞতার স্বাদ পাবার। স্বাভাবিকভাবেই রোমাঞ্চিত সবাই। 

‘নতুন একটা অভিজ্ঞতা। টেনশন না বরং বাড়তি রোমাঞ্চ কাজ করছে পিংক বলে খেলব প্রথমবার। সাধারণত যেরকম হয় সেরকমই, সবাই  নরমাল আছি। সবসময় যেভাবে ম্যাচে মাঠে নামি সেরকমই আছি।’

এমআর/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বাংলাদেশের ভারত সফর এর সর্বশেষ
  • বাংলাদেশের ভারত সফর এর পাঠক প্রিয়