logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সৌরভকে ঘিরে নতুন আশা বিসিবির

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২১:৩৮ | আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২১:৪৭
সৌরভকে ঘিরে নতুন আশা বিসিবির
জালাল ইউনুস
আনুষ্ঠানিকভাবে বাইশ গজকে বিদায় বলেছেন ২০১২ সালে। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে পুনে ওয়ারিয়র্সের হয়ে মাঠে নেমেছিলেন শেষবার। এরপর দীর্ঘদিন ধরে দায়িত্ব পালন করে আসছেন ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের প্রেসিডেন্ট হিসেবে।

এবার সেই দায়িত্ব ছাড়ার পালা। কাঁধে উঠতে যাচ্ছে গোটা ভারতের ক্রিকেটের দায়িত্ব। বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী।

বাঙালি হিসেবে এর আগে বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট পদে দায়িত্ব পালন করেছিলেন প্রয়াত জাগমোহন ডালমিয়া। তার সময়েই টেস্ট স্ট্যাটাস লাভ করে বাংলাদেশ ক্রিকেট। বাংলাদেশ ক্রিকেটের বদলে যাওয়ার পেছনে তার কৃতিত্বটা  শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে বাংলাদেশ।

সেই ডালমিয়ার পর দ্বিতীয় বাঙালি হিসেবে বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট পদে বসতে যাচ্ছেন সৌরভ গাঙ্গুলী। যার জনপ্রিয়তা বাংলাদেশেও কম নয়। প্রত্যাশাটাও তাই বেশিই সৌরভের প্রতি।

সোমবার গণমাধ্যমকে তেমনটাই জানালেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।

‘বিসিসিআইয়ের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক এমনিতেই ভালো। বর্তমানে যারা দায়িত্বে আছেন, তাদের সঙ্গেও সম্পর্ক ভাল। আগে যারা ছিলেন তাদের সঙ্গেও ছিল। তাছাড়া সৌরভ গাঙ্গুলী একজন বাঙালি, একজন সাবেক ক্রিকেটার, সেজন্য নিঃসন্দেহে বাড়তি একটা সুবিধা আমরা পাব। তার সঙ্গে কোনও একটা ইস্যু নিয়ে আলোচনা করতে আমরা হয়তো আরেকটু স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করব।’

অনেক বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের সঙ্গেও সৌরভের ব্যক্তিগত সম্পর্ক আছে। বিশেষ করে বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক ও প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের উদাহরণ টেনে জালাল ইউনুস বলেন, বাংলাদেশের অনেকের সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পর্ক আছে, এটির সবচেয়ে বড় উদাহরণ বিসিবির পরিচালক নাঈমুর রহমান। বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে নাঈমুর অধিনায়ক হিসেবে টস করতে গিয়েছিলেন সৌরভের সঙ্গে। দুই অধিনায়ক এখন জড়িয়ে ক্রিকেট প্রশাসনের সঙ্গে।

বিসিসিআই ও বিসিবির সঙ্গে ভালো সম্পর্ক থাকলেও সেভাবে আতিথেয়তা কখনও পায়নি বাংলাদেশ। সেটা জাতীয় দল কিংবা বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের ক্ষেত্রেও। সৌরভ গাঙ্গুলী বোর্ড প্রেসিডেন্ট হলে এই দূরত্বটাও কমে আসবে বলে মনে করেন জালাল ইউনুস।

‘আমরা যে খেলাগুলো আগে পাইনি হয়তো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ, জুনিয়র লেভেলেও যদি একচেঞ্জ প্রোগ্রাম থাকে, সেগুলো নিয়ে আমরা খোলামেলা আলোচনা করতে পারব, এই সুবিধাটা থাকবে।’

এমআর/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • খেলা এর সর্বশেষ
  • খেলা এর পাঠক প্রিয়