logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬

আমিরকে নিয়ে সমালোচনার জবাব দিলেন তার স্ত্রী

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০২ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৪৫ | আপডেট : ০২ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৫২
আমিরকে নিয়ে সমালোচনার জবাব দিলেন তার স্ত্রী
ছবি- সংগৃহীত
বিশ্বকাপ শেষ হবার কদিন পরেই টেস্ট ক্রিকেটকে আচমকা বিদায় বলে দেন পাকিস্তানের তারকা পেসার মোহাম্মদ আমির। তার এই অবসরের সিদ্ধান্তকে স্বাভাবিকভাবে নেননি দেশটির সাবেক ক্রিকেটার থেকে শুরু করে সমর্থকেরা। শুরু হয় সমালোচনা। যে যেভাবে পেরেছেন সেভাবেই কটূক্তি করছেন আমিরকে।

গত কয়েকদিন ধরে চলা এই কটূক্তির কোনও জবাব দেননি আমির। আমির কোনও জবাব না দিলেও তার সহধর্মীনি নার্গিস তার স্বামীকে নিয়ে এমন সমালোচনা মানতে পারছেন না। যে কারণে টুইটে সমালোচকদের পাল্টা জবাব দেন তিনি।

সমালোচকদের মতে, দেশ ও দেশের ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসা হারিয়ে ফেলেছেন আমির। তাই অর্থের লোভে ইংল্যান্ডে ক্রিকেট খেলতে ও সেখানে বসবাস করতে চান। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ চলাকালীন আমিরকে ভীষণ প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন সমালোচকরা। কিন্তু টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরুর আগেই হঠাৎ করে টেস্টকে বিদায় জানানোতে খেপেছেন দেশটির সাবেক ক্রিকেটাররা।

---------------------------------------------------------------
আরো পড়ুন: ডেঙ্গু মোকাবেলায় সচেতনতার অনুরোধ সাব্বিরের
---------------------------------------------------------------

আবার অনেকের অভিযোগ, আমীরের স্ত্রী ব্রিটিশ হওয়ায় সেখানকার নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্যই এই সময়ে ক্রিকেট ছাড়তে যাচ্ছেন। যদিও আমির শুধুই টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন।

আমির তার অবসরনামায় উল্লেখ করেন, আগামী বছর অস্ট্রেলিয়ায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজের সেরাটা দেয়ার জন্যই টেস্টকে বিদায়। দেশের হয়ে আরও অনেকদিন খেলে যেতে চান বলেও উল্লেখ করেন এই বাঁহাতি পেসার।

এরপরও এমন কটূক্তি আর সমালোচনা মানতে পারেননি আমীরের স্ত্রী। টুইটারে আমির পত্নী নার্গিস লিখেছেন, যদিও আমাদের সিদ্ধান্ত কি সেটা কাউকে বলার প্রয়োজন মনে করছি না এবং কি সিদ্ধান্ত নিবো সেটাও কাউকে জানিয়ে করার কোনও প্রয়োজন নেই। এরপরও যারা আমাদের সমর্থন করেছেন তাদের বলছি, আমার স্বামীর ইংল্যান্ড কিংবা অন্য দেশের হয়ে খেলার প্রয়োজন নেই। সে এদেশের একজন গর্বিত সন্তান এবং সে পাকিস্তানের হয়ে খেলতেই ভালোবাসে।

তার স্ত্রী আরও বলেন, শুধু আমিরই নন, আমাদের কন্যা মিনসাও তার বাবার মতো ক্রিকেটার হতে চায়। আমিরেরও ইচ্ছা তার মেয়ে যেন পাকিস্তানের ক্রিকেটার হয়। আমির কেবল টেস্ট ছেড়েছে, ক্রিকেট নয়। সে মনে করে টেস্টের চেয়ে ওয়ানডে কিংবা টি-টুয়েন্টিতে দেশকে আরও বেশি কিছু দিতে পারবে। যারা নেতিবাচক কথা বলে তাদের উপর শান্তি বর্ষিত হোক।

২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাত্র ১৭ বছর বয়সে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক হয় তার। অভিষেক হবার এক বছর পরই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ম্যাচে জড়িয়ে পড়েন ফিক্সিং ক্যালেঙ্কারিতে। এরপর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন পাঁচ বছরের জন্য। আমীর ৩৬টি ম্যাচে ১১৯টি উইকেট নিয়েছেন।

এমআর/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়