• ঢাকা রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

দুই ম্যাচে ১৪শ রান!

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ১২ মে ২০১৯, ১৩:১৩ | আপডেট : ১২ মে ২০১৯, ১৪:০৪
ইংলিশ উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান জস বাটলার- ছবি- সংগৃহীত
বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসর বসছে ইংল্যান্ডে। ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা আগে থেকেই বলে আসছিলেন ইংলিশ কন্ডিশনের পিচ হবে  ব্যাটিং সহায়ক। ফলে হাইস্কোরিং ম্যাচ দেখা যাবে ২০১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে। ৩০ মে থেকে শুরু হতে যাওয়া এবারের আসরের আগে আয়ারল্যান্ডে বসেছে ত্রিদেশীয় সিরিজ। অন্যদিকে নিজেদের মাটিতে পাকিস্তানকে আতিথেয়তা দিচ্ছে বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ ইংল্যান্ড। শনিবার রাতে এই দুই চলমান সিরিজে দেখা মিলেছে দুটি হাইস্কোরিং ম্যাচ। যেখানে রান হয়েছে প্রায় ১৪শ’।

whirpool
বাংলাদেশ, আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার ত্রিদেশীয় সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে আইরিশদের বিপক্ষে মুখোমুখি হয়েছিল ক্যারিবীয়রা। ডাবলিনের মালাহাইড ক্রিকেট ক্লাবের মাঠ দ্য ভিলেজে টস জেতার পর ব্যাট করতে নেমেছিল আয়ারল্যান্ড।

অ্যান্ডি বালবিরনি

স্বাগতিক অধিনায়ক উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড এই সিদ্ধান্তটি বেশ ভালোভাবেই কাজে লাগায় আইরিশ ব্যাটসম্যানরা। ১২৪ বলে ১৩৬ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস উপহার দেন অ্যান্ডি বালবিরনি। ৯৮ বলে ৭৭ রান করেন পল স্টির্লিং এছাড়া কেভিন ও’বায়ার্ন খেলেন ৪০ বলে ৬৩ রানের ক্যামিও ইনিংস। এতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে পাঁচ উইকেট হারিয়ে ৩২৭ রান সংগ্রহ করে পোর্টারফিল্ডের দল।

৩২৮ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আইরিশ বোলারদের শাসন করতে থাকেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। সুনীল অ্যামব্রিস খেলেন ১২৬ বলে ১৪৮ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস। এছাড়া রস্টন চেজের ৫৩ বলে ৪৬ রান ও জনাথন কার্টারের ২৭ বলে ৪৩ রানের ইনিংসের সুবাদে ৪৭.৫ ওভারে ৩৩১ রান তুলে নেয়। এতে ১৩ বল বাকি থাকতে ম্যাচটি জিতে নেয় জেসন হোল্ডার নেতৃত্বাধীন দলটি।

সেঞ্চুরি উদযাপন করছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপেনার সুনীল অ্যামব্রিস

অন্যদিকে সাউথহ্যাম্পটনের রোজ বোল স্টেডিয়ামে টস জিতেছিল পাকিস্তানও। যদিও তারা ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। এর এটিই তাদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়।

জেসন রয় ৯৮ বলে ৮৭, জনি বেয়ারেস্ট্রো ৪৫ বলে ৫১, জো রুট ৫৪ বলে ৪০ ও ইয়ন মরগ্যান ৪৮ বলে ৭১ রানের ইনিংস খেলেন। এছাড়া মাত্র ৫৫ বলে ১১০ রানে ঝড়ো ইনিংস উপহার দেন জস বাটলার।

পাকিস্তানের ওপেনার ফখর জামান

পাহাড়সম রান মাথায় নিয়ে খেলতে নেমে বেশ ভালই জবাব দেয়া শুরু করেন ফখর জামান ও ইমাম-উল-হক। দলীয় ৯২ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ৩৫ রানে ইমাম ফিরলেও লড়াই চালিয়ে যান ফখর। ১০৬ বলে ১৩৮ রান তুলেন বাম-হাতি এই ওপেনার।

বাবার আজম ৫২ বলে ৫২ আর আসিফ আলি ৩৬ বলে ৫২ রান করেন। শেষ দিকে ৩২ বলে ৪১ রান করলেও দলকে জেতাতে সক্ষম দলপতি শরফরাজ আহমেদ। 

৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৬১ রান তুলে নেয় পাকিস্তান। এতে ১২ রানে জয় পেয়ে ৫ ম্যাচের সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে যায় ক্রিকেটের জনকরা।

ওয়াই

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়

আজকের প্রশ্ন :

  • হ্যাঁ
    ক্লিক করুন
  • না
    ক্লিক করুন
  • মন্তব্য নেই
    ক্লিক করুন
মোট ভোট সংখ্যা : ৮৯