• ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

রোজ বোল বা এজিয়াস বোল

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৩ মার্চ ২০১৯, ১১:৫৮

আর ৮৭ দিন পরই ইংল্যান্ডে বসছে দ্বাদশ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আসর। প্রায় দেড় মাস বুদ হয়ে থাকবে ক্রিকেটপ্রেমীরা। ক্রিকেটের মক্কা খ্যাত লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ফাইনালের মধ্য দিয়ে পর্দা নামবে এ আসরের।

বিশ্বের ১০টি দল নিয়ে এবারের আসর অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে ৪৪টি ম্যাচ হবে। খেলা হবে ইংল্যান্ডের ১০টি স্টেডিয়ামে। ক্রিকেট বিশ্বকাপ নিয়ে আমাদের প্রতিদিনের আয়োজনে চলছে বিশ্বকাপের ভেন্যু পরিচিতি। আজ আমাদের আয়োজনে থাকছে হ্যাম্পশায়ারের রোজ বোল ক্রিকেট গ্রাউন্ড নিয়ে।

এ মাঠটি ইংল্যান্ডের হ্যাম্পশায়ার কাউন্টির ওয়েস্ট এন্ডে অবস্থিত একটি ক্রিকেট মাঠ। ব্যবসায়িক সম্প্রচারস্বত্ত্বজনিত কারণে এ স্টেডিয়ামটি এজিয়াস বোল নামে পরিচিতি। এটি কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাব হ্যাম্পশায়ারের প্রধান মাঠ। দলটি এখানে ২০০১ সাল থেকে খেলে আসছে। 

১৮৮৫ সালে সাউদাম্পটের কাউন্টি গ্রাউন্ড তেকে স্থানান্তরিত হয়ে হ্যাম্পশায়ার দল এ মাঠ নির্মাণ করে। ২০০১ সালে পর থেকে আন্তর্জাতিক ম্যাচগুলো নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২০০৪ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির বেশ কয়েকটি ম্যাচ, দুইটি টি-টোয়েন্টি আর্ন্তজাতিক ম্যাচ এবং ২০১১ সালে ইংল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কার মধ্যকার টেস্ট খেলা অনুষ্ঠিত হয়। 

২০১১ সালে ১৬ জুনে ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার ম্যাচটি দিয়ে মাঠে টেস্টের যাত্রা। ২০০৩ সালের ১০ জুলাই দক্ষিণ আফ্রিকা ও জিম্বাবুয়ের ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডে ম্যাচের যাত্রা শুরু হয়। ২০০৫ সালের ১৩ জুন ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে অনুষ্ঠিত হয় প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।

ওয়ানডে ক্রিকেটে এ মাঠে রয়েছে ১৬টি সেঞ্চুরি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট এ মাঠের একমাত্র সেঞ্চুরি অস্ট্রেলিয়ার অ্যারেন ফিঞ্চের। নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গাপটিলের অপরাজিত ১৮৯ রানের ইনিংস সর্বোচ্চ। এ মাঠে বিশ্বকাপের মোট পাঁচটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। মাঠে দর্শক ধারণ ক্ষমতা ২০ হাজার।

এখানে বিশ্বকাপের অষ্টম ম্যাচে ৫ জুন মুখোমুখি হবে ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকা। এছাড়া ১০ জুন বিশ্বকাপের ১৫তম ম্যাচে উইন্ডিজের মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা, ১৯তম ম্যাচে ১৪ জুন উইন্ডিজের মুখোমুখি হবে স্বাগতিক ইংল্যান্ড, ২২ জুন বিশ্বকাপের ২৮তম ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে নামবে আফগানিস্তান এবং ২৪ জুন বিশ্বকাপের ৩১তম ম্যাচে বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে আফগানিস্তান। ২২টি ওয়ানডে ম্যাচ এখানে অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগে ব্যাট করে জয়ী হয়েছে ১১টি ম্যাচ। আগে বল করে জয়ী হয়েছে ১০টি ম্যাচে।

প্রথম ইনিংসে গড় রান ২৫৬ আর দ্বিতীয় ইনিংসের গড় রান ২০৬। এই মাঠে সর্বোচ্চ রান ৩ উইকেটে ৩৫৯ রান। আর সর্বনিম্ন ৬৫ রান। সর্বোচ্চ ৩০৬/৭ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড রয়েছে এ মাঠে। সর্বনিম্ন ২৫১/৭ রান করেও জয়ের রেকর্ড রয়েছে এখানে।

এএ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়