Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

বিপিএল

চট্টগ্রামকে ঘরের মাঠে হারাল খুলনা

জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছেড়েছেন মুশফিকুর রহিম। ঢাকায় অনুষ্ঠিত চলতি বিপিএলে খুলনা টাইগার্সের হয়ে প্রথম দুই ম্যাচেই বাজে ব্যাটিং করেন মুশফিকুর রহিম। চট্টগ্রাম যেতেই যেন বদলে গেলেন এই ডানহাতি ব্যাটার।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের দেওয়া ১৪৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় খুলনা টাইগার্স। ওপেনার সৌম্য সরকার কোভিড নেগেটিভ হয়ে দলে ফিরলেও ১ রানের বেশি করতে পারেননি। পেসার শরিফুল ইসলামের বলে বেনি হাওয়েলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাজঘরে।

এরপর রনি তালুকদারকে দলীয় ৫২ রানের মাথায় ১৭ রানে ফেরান নাসুম আহমেদ। গত ম্যাচে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়া আন্দ্রে ফ্লেচার এই ম্যাচে ফিরেই খেললেন অর্ধশতকের ইনিংস। মেহেদী মিরাজের বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে ৪৭ বলে ৬টি চার ও ২টি ছয়ে করেন ৫৮ রান।

৯৮ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর মুশফিকুর রহিম ও সেকুগে প্রসন্ন মিলে ৪৫ রানের জুটি গড়ে নিশ্চিত করেন খুলনার দ্বিতীয় জয়। মুশফিক অপরাজিত থেকেছেন ৪৪ (৩০) রানে। প্রসন্ন (২৩) আউট হন জয়ের থেকে মাত্র ১ রান আগে।

চট্টগ্রামের পক্ষে ২ উইকেট নেন মেহেদী মিরাজ, ১ উইকেট করে নেন শরিফুল ইসলাম ও নাসুম আহমেদ।

দুপুরে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। ওপেনার কেনার লুইস মাত্র ১ রান করে সাজঘরে ফেরেন নাবিল সামাদের বলে, ফরহাদ রেজার হাতে ক্যাচ দিয়ে। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে উইল জ্যাকস ও আফিফ হোসেনের জুটি যোগ করে ৫৭ রান।

দলীয় ৬০ রানের মাথায় উইল জ্যাকস ২৮ (২৩) রান করে থিসারা পেরেরার বলে বোল্ড হয়। অন্যদিকে ৪ রান করে ক্যাচ দেন সাব্বির রহমান। অধিনায়ক মেহেদী মিরাজ ৬ রান করে ফেরেন শেখ মেহেদীর বলে ক্যাচ দিয়ে।

দলের বিপর্যয়ে আফিফ হোসেন একপ্রান্ত আগলে রেখে খেলেন। ৩৭ বলে ৪৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন ফরহাদ রেজার বলে শেখ মেহেদীর হাতে ক্যাচ দিয়ে। মাত্র ৯৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে দিশেহারা চট্টগ্রামের হয়ে শেষ পর্যন্ত লড়াই করে নাঈম ইসলাম। তিনি খেলেন ১৯ বলে অপরাজিত ২৫ রানের ইনিংস। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৪৩ রান সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

খুলনার পক্ষে ৩ উইকেট নেন থিসারা পেরেরা। ১টি করে উইকেট নেন কামরুল ইসলাম, নাবিল সামাদ, শেখ মেহেদী, সেকুগে প্রসন্ন ও ফরহাদ রেজা।

এম/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS