Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮

পাকিস্তানের হয়ে খেলতে ৩০ কেজি ওজন কমান আজম

বাবা মঈন খানের সঙ্গে আজম খান

সাবেক পাকিস্তানি উইকেট রক্ষক-ব্যাটসম্যান মঈন খানকে কে না চেনে। তার মারকুটে ব্যাটিং ভক্তদের মনে জায়গা করে আছে আজও। তবে এখানেই শেষ নয়, ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রেখেছেন নিজের পরিবারের মাঝে।

ছেলে আজম খানকে গড়ে তুলেছেন একজন ক্রিকেটার হিসেবে। অবশেষে স্বপ্ন পূরণও হতে যাচ্ছে। পাকিস্তান দলে ডাকা হয়েছে আজমকে প্রথমবারের মতো।

তবে পথটা মসৃণ ছিল না একেবারেই। তাকে পারফরম্যান্সের সঙ্গে লড়তে হয়েছে নিজের সঙ্গেও। সেটা ওজন। ২০০৯ সালে প্রথমবার পাকিস্তান সুপার লিগে খেলার সময়ই বুঝতে পেরেছিলেন, তার দীর্ঘ দেহ নিয়ে মজা করছে মানুষ। সঙ্গে পারফরম্যান্সও ছিল মজার অংশ।

সেসব থেকে বেরিয়ে এসেছেন। গত এক বছরে ওজন কমিয়েছেন ৩০ কেজি! তাতেই কী না উন্নতি হয়েছে পারফরম্যান্সের। যা নজরে এসেছে পাকিস্তান ক্রিকেটের নির্বাচকদেরও। যদিও আজমের ওজন এখনও ১০০ কেজি।

আসন্ন ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলবে পাকিস্তান। রয়েছে ৩টি ওয়ানডে, ৫টি টি-টোয়েন্টি ও ২টি টেস্ট ম্যাচ। টেস্ট দলের জন্য বিবেচনা করা না হলেও ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির দলে রাখা হয়েছে আজমকে।

আজমকে দলে নেয়ার ব্যপারে পিসিবি প্রধান নির্বাচক মোহাম্মদ ওয়াসিম বলেন, ‘আমরা চারজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়কে দলে ফেরানোর সঙ্গে আযম খানকেও নিয়েছি। এর কারণ, ঘরোয়া টুর্নামেন্টগুলোতে তার অসাধারণ পারফরম্যান্স।’

ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৩৬টি ম্যাচে ১৫৭.৪১ স্ট্রাইকরেটে করেন ৭৪৩ রান। পিএসএলে স্থগিত হওয়া আসরে ১৪৪ এর বেশি স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করেছেন কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটরসের হয়ে।

টেস্ট: বাবর আজম (অধিনায়ক), মোহাম্মদ রিজওয়ান (সহ-অধিনায়ক, উইকেটরক্ষক), আবদুল্লাহ শফিক, আবিদ আলি, আজহার আলি, ফাহিম আশরাফ, ফাওয়াদ আলম, হারিস রউফ, হাসান আলি, ইমরান বাট, মোহাম্মদ আব্বাস, মোহাম্মদ নওয়াজ, নাসিম শাহ, নোমান আলি, সাজিদ খান, সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), সৌদ শাকিল, শাহিন শাহ আফ্রিদি, শাহনওয়াজ দাহানি, ইয়াসির শাহ (ফিটনেসের ওপর নির্ভরশীল) ও জাহিদ মাহমুদ।

ওয়ানডে: বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান (সহ-অধিনায়ক), আবদুল্লাহ শফিক, ফাহিম আশরাফ, ফাখর জামান, হায়দার আলি, হারিস রউফ, হারিস সোহাইল, হাসান আলি, ইমাম উল হক, মোহাম্মদ হাসনাইন, মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটরক্ষক), সালমান আলি আঘা, সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), সৌদ শাকিল, শাহিন শাহ আফ্রিদি ও উসমান কাদির।

টি-টোয়েন্টি: বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান (সহ-অধিনায়ক), আরশাদ ইকবাল, আজম খান, ফাহিম আশরাফ, ফাখর জামান, হায়দার আলী, হারিস রউফ, হাসান আলি, ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ হাফিজ, মোহাম্মদ হাসনাইন, মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র, সরফরাজ আহমেদ (উইকেটরক্ষক), শাহিন শাহ আফ্রিদি, শারজিল খান ও উসমান কাদির।

এমআর/

RTV Drama
RTVPLUS