Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ১০ মে ২০২১, ২৭ বৈশাখ ১৪২৮

টোকিও অলিম্পিক

অলিম্পিকের বাস্কেটবলে প্রথম আরব মুসলিম নারী রেফারি

সারাহ জামাল

দরজায় কড়া নাড়ছে টোকিও অলিম্পিকের। চলছে শুরুর ক্ষণ গণনা, প্রস্তুত হচ্ছে অংশ নেয়া সব দেশগুলো। এর মাঝেই চলছে অলিম্পিকে খেলা পরিচালকদের চূড়ান্ত তালিকা।

যেখানে প্রথমবারের মতো সুযোগ হয়েছে এক আরব ও আফ্রিকান মুসলিম নারী রেফারির। মিশরের ‘সারাহ জামাল’ নামের এই নারী রেফারির পরিচালনা করবেন অলিম্পিকে বাস্কেটবল ম্যাচ। আসন্ন অলিম্পিকে বাস্কেট বলের উদ্বোধনী ম্যাচেই দেখা যাবে সারা জামালকে রেফারি হিসেবে।

এ নিয়ে বেশ রোমাঞ্চিত এই আফ্রিকান ও আরব রেফারি। সংবাদ মাধ্যম এএফপি-কে দেয়া সাক্ষাতকারে সারাহ বলেন, “বাস্কেটবলে খেলা পরিচালনা করার পর কখনও আমাকে বাজে মন্তব্য শুনতে হয়নি। এমন কী কোনো প্রতিবন্ধকতারও মুখোমুখি হতে হয়নি। আমার হিজাব আমাকে কোনো সমস্যায় ফেলেনি এখনও পর্যন্ত।”

৩২ বছর বয়সী সারাহ আরও বলেন, “আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল ফেডারেশন ২০১৭ সাল থেকে তাদের নিয়মে পরিবর্তন করে যেখানে হিজাব পড়তে কোনো নিষেধ করা হয়নি।”

২০১৮ সালে বেলারুশে অনুষ্ঠিত “আন্তর্জাতিক বাস্কেটবল ফেডারেশন ওয়ার্ল্ড ইউথ কাপ ও ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা উইমেন্স চ্যাম্পিয়ন্সশিপ প্রতিযোগিতায় ম্যাচ পরিচালনার অভিজ্ঞতা রয়েছে সারাহ’র।

সেসব অভিজ্ঞতা নিয়ে সারাহ বলেন, “হিজাব কখনোই প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেনি ম্যাচ পরিচালনার ক্ষেত্রে। আশা করি টোকিও অলিম্পিকেও কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না। আমার পুরোপুরি মনোযোগ এখন অনুশীলনে।”

মেয়েদের ম্যাচের পাশাপাশি ছেলেদের ম্যাচও পরিচালনা করার অভিজ্ঞতা নিয়ে সারাহ বলেন, “আমি মিশরের রেফারি কমিটির সদস্য। আমাকে মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদের ম্যাচও পরিচালনা করতে হয়েছে। আমি সেখানেও সফলভাবে ম্যাচ পরিচালনা করতে সক্ষম হই।”

তবে সারাহ স্বীকার করেছেন, এত পথ পেরুতে তাকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। এর সবই এক দিনে হয়নি। এর জন্য পরিবার এবং কাছের মানুষদের সহযোগিতা পেয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন।

“এতদূর আসতে আমাকে অনেক কঠিন সময় পার করতে হয়েছে। শুরুর দিকে আমি ঠিকভাবে পারিনি। তবে কঠিন অনুশীলনে একটা সময় আমি সফল হই। এক্ষেত্রে আমার পরিবার ও কাছের মানুষদের সহযোগিতা অনস্বীকার্য। আমার এত বড় সুসংবাদ শুনে আমার পরিবারের সবাই রোমাঞ্চিত।”

এমআর/

RTV Drama
RTVPLUS