Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

গ্রহ-উপগ্রহের জমি বিক্রির নামে হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা (ভিডিও)

১৯৬৭ সালের মহাকাশ আইন অনুযায়ী, কোনো রাষ্ট্রের মহাকাশের কোনো বস্তু বা চাঁদকে নিজের বলে দাবির সুযোগ নেই। কিন্তু নিজেদের মতো করে মনগড়া ভুল-ভাল ব্যাখা দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে ছায়াপথের স্বঘোষিত সরকার দাবিদার লুনার অ্যাম্বাসি। আজগুবি এমন ঘটনার পেছনে যারা ছুটছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ।

নিজের শক্তি জানান দিতে ঐতিহাসিককাল থেকেই ভূখন্ড বা ক্ষমতা দখলের আশায় যুদ্ধ, ধ্বংস, গণহত্যা দেখে আসছে মানুষ। কিন্তু পৃথিবীর মতো অন্য গ্রহ-উপগ্রহ নিয়েও যেন এমন না হয়, সেই আশঙ্কা থেকে ১৯৬৭ সালের ২৭ জানুয়ারি মহাকাশ চুক্তি হয়। যা কার্যকর হয় ঐ বছরের ১০ অক্টোবর। এতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ ১১১টি দেশ সই করে। যে আইনের মূল কথা হলো সার্বভৌমত্ব বা অন্য কোনো উপায়ে গ্রহ-উপগ্রহের দাবি করা যাবে না। তবে অনুসন্ধানের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

এসব বিষয় থোড়ায় কেয়ার করে ডেনিস এম হোপ নিজের মতো করে যুক্তি তুলে ধরে সিল বানিয়ে নিজেকে ঘোষণা করেছেন ছায়াপথের সরকার। বিশ্ববাসীর কাছে চাঁদ-মঙ্গলসহ বিভিন্ন গ্রহ-উপগ্রহের জমি বিক্রির নামে হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা। আর এমন কাণ্ড না থামিয়ে বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমগুলো তার পক্ষেই মুখরোচক প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বেড়েই চলেছে প্রতারিত মানুষের সংখ্যা।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদের মতে, চাঁদ বা মহাজাগতিক ক্ষেত্রে জমি কেনার নামে বিদেশে টাকা পাচার থামাতে জরুরি ভিত্তিতে সরকারের পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।

তিনি বলেন, প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির নাম ব্যবহার করা হচ্ছে, এগুলো আমার মনে হয় একটা ডিজাইন। প্রতারণার ডিজাইন। আমরা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এ ধরনের প্রতারণা দেখতে পাচ্ছি। একটা রিপোর্টে এসেছে- বাংলাদেশের একজন মাত্র ৫০ ডলারে চাঁদে জমি কিনেছেন এবং রেজিস্ট্রিও পেয়ে গেছেন। ওয়াবসাইটে এরকম অনেক কিছুই পাওয়া যায়। আমারা মনে হয়, এখনই সতর্ক হওয়া দরকার। কারণ এমন লোভনীয় বিষয়টা নিয়ে মানুষ যেন প্রতারিত না সে ব্যাপারে সরকারের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত। গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ করে মানুষকে সচেতন করা দরকার। তা না হলে অনেক মানুষ প্রতারিত হবে।

এনএইচ

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS