Mir cement
logo
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮

ঈদের ছুটিতে বান্দরবানে ছিল না পর্যটকের কোলাহল

ঈদের ছুটিতে বান্দরবানে ছিল না পর্যটকের কোলাহল
ঈদের ছুটিতে বান্দরবানে ছিল না পর্যটকের কোলাহল

ঈদের টানা ছুটিতে প্রকৃতির নির্মল স্বাদ পেতে পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় জায়গা বান্দরবান। পাহাড়-পর্বত ছাড়াও এখানে রয়েছে ঝিরি-ঝরনা, মেঘলা, নীলাচল, নীলগিরি, চিম্বুকসহ অসংখ্য পর্যটনকেন্দ্র। প্রতি বছরই ঈদের টানা ছুটিতে পর্যটকদের ঢল নামে পাহাড়ে। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় গত দেড় মাস ধরে বন্ধ রয়েছে বান্দরবান পর্যটন কেন্দ্রগুলো। ফলে ঈদের ছুটিতেও ছিল না পর্যটকের কোলাহল আর পদচারণা।

করোনার কারণে গত বছরও পর্যটন সেক্টরের এমন অবস্থা ছিল। এবছরও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় গত ১ এপ্রিল থেকে স্থানীয় প্রশাসন জেলার সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করে। এতে হোটেল-মোটেল রিসোর্টগুলো বন্ধ হয়ে যায়। এর পর শুরু হয় লকডাউন। এতে দূরপাল্লার যানবাহন বন্ধ হয়ে যায়। বেকার হয়ে পড়ে শত শত শ্রমিক-কর্মচারী। তাদের পরিবারে দেখা দেয় অভাব-অনটন। অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে পড়েন ব্যবসায়ীরা। অপরদিকে পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে যাতে কোন পর্যটক সমাগম বা কোন ধরনের অপরাধ কার্যক্রম সংগঠিত না হয়, সেজন্য নিয়মিত ট্যুরিস্ট পুলিশ সদস্যদের টহল অব্যাহত রয়েছে।

গত দেড় মাস ধরে হোটেল-মোটেল রিসোর্ট বন্ধ থাকায় মালিকপক্ষের লাখ লাখ টাকা লোকসান গুণতে হচ্ছে। যে কারণে শ্রমিক-কর্মচারী ছুটি দেওয়া হয়েছে। ঈদে পর্যটন ব্যবসা জমে উঠবে এমন আশায় বুক বেঁধেছিলেন ব্যবসায়ীরা। সে আশা নিরাশ হয়ে গেছে ব্যবসায়ীদের। যার ফলে অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যয়ে পড়েছে পর্যটনশিল্প।

হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি অমলকান্তি দাশ আরটিভি নিউজকে বলেন, বান্দরবানে পর্যটনসহ সংশ্লিষ্ট ব্যবসায় বড়ধরনের একটা প্রভাব পড়েছে। গত বছরও করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে পর্যটনকেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। এবছরও একই অবস্থা। এতে ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত।

ট্যুরিস্ট পুলিশ ইনচার্জ মো. আমিনুল হক বলেন, বান্দরবানের সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ রয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে পর্যটকদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে কোন ট্যুরিস্ট সমাগম যাতে না ঘটাতে পারে সেজন্য নিয়মিত টহল অব্যাহত রেখেছি।

তিনি আরও বলেন, অনেকে বান্দরবানের পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ থাকার বিষয়টি না জেনে চলে আসেন, আমরা তাদের এসময়ে না আসার জন্য নিরুৎসাহিত করছি। বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্রে যাতে কোনো মাদকসেবীর আড্ডা না হয় এবং কোনো ধরনের অপরাধ কার্যক্রম সংগঠিত না হয়, সেজন্য নিয়মিত আমাদের ট্যুরিস্ট পুলিশের টহল অব্যাহত থাকবে।

জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেন, করোনা মহামারি মোকাবেলায় গত ১ এপ্রিল থেকে বান্দরবানের সব পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ রাখার জন্য গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এরপর বান্দরবানে পর্যটকদের আগমন নেই। লকডাউনে সরকারি নির্দেশনা সবাইকে মেনে চলতে হবে। পরিস্থিতি বিবেচনা করে সরকারের নির্দেশনায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পি

RTV Drama
RTVPLUS