logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৭

মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রগুলো চলছে অনুমোদন ছাড়াই (ভিডিও)

‘মাদকাসক্তি নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের নামে রাজধানীসহ সারাদেশে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে অনুমোদনহীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। নিয়মনীতি ছাড়াই যেখানে সেখানে কথিত এসব নিরাময় কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, দেশে বৈধ নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্র আছে ৩৫০টি। আর অবৈধ প্রতিষ্ঠানের সঠিক হিসেব নেই। 

মাদকাসক্তদের পুনর্বাসনের নামে লাইসেন্স ছাড়াই রাজধানীসহ সারাদেশে গড়ে উঠেছে অসংখ্য পুনর্বাসন কেন্দ্র। আবার যে সংখ্যক রোগী রাখার অনুমোদন আছে তার চেয়ে বেশি রোগী নিয়ে চলছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান। 

রাজধানীর বসিলায় অনুমোদন না নিয়ে আট মাস ধরে রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে ‘নিউ প্রত্যাশা মাদকাসক্তসেবা ও পুনর্বাসন কেন্দ্র’। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের গাফিলতিতে লাইসেন্স পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করলেন  প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ফরহাদ হাসান। 

তিনি বলেন, তারা যদি শক্তভাবে বলতো সম্পূর্ণ কাগজপত্র না হওয়া পর্যন্ত কোনো রোগী ভর্তি করতে পারবেন না, তাহলে সাহস করে হলেও সেন্টার খুলতে পারতাম না। 

গত বছর লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয়েছে ‘শান্তি নীড়’ নামে প্রতিষ্ঠানের। লাইসেন্স ছাড়াই এখন চলছে নিরাময় কেন্দ্রটি। একজন এইচএসসি পাশ ফিজিওথেরাপিস্টকে দিয়ে দেওয়া হচ্ছে চিকিৎসা।

শান্তি নীড় এর নির্বাহী পরিচালক ফয়েজ আহমেদ বলেন, সমস্যা হওয়ার কারণেই তো এখন এই অবস্থা। গাদাগাদি করে রোগী রাখার পাশাপাশি প্রকারভেদে নেওয়া হয় বিভিন্ন অংকের টাকা।

লাইসেন্সওয়ালাদের নামেও আছে নানা অভিযোগ। মোহাম্মদপুরে ঢাকা উদ্যানের ‘নিউ তরী’ প্রতিষ্ঠানটি ১৫ জন রোগীর অনুমতি নিয়ে ৩১ জনকে ভর্তি করেছে। আর ‘জীবনের আলো’ তো নিজেদের আলোর নমুনা দেখাতেই রাজি না। 

নিউ তরীর প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, তারা যে নিয়ম দিয়েছে তা কিভাবে সম্ভব। ডাক্তারসহ আমাদের স্টাফই লাগে ১৫ জন। তাহলে এদের বেতন কি করে দেবো। 

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জানালেন সারাদেশের অবৈধ মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রর তথ্য পেয়েছি। অভিযান চালিয়ে এগুলো বন্ধ করা হচ্ছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক মোহাম্মদ আহসানুল জব্বার বলেন, যারা অনুমতি পায়নি তারা বেআইনিভাবে পরিচালনা করছে। অনুমতি না নিয়ে যারা এসব করছে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

অবৈধ লাইসেন্সের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানালেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক।
জিএম/এমকে  
 

RTV Drama
RTVPLUS