Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন

  ২০ জুন ২০২০, ১৮:০৮
আপডেট : ২০ জুন ২০২০, ১৮:২৭

রোববার বাংলাদেশ থেকেও দেখা যাবে বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ

21 june to be the first annular solar eclipse of this year
সংগৃহীত

আগামীকাল রোববার (২১ জুন) বছরের দীর্ঘতম দিন বা কর্কটক্রান্তি দিবস। এদিন বছরের প্রথম সূর্যগ্রহণ হবে। তবে এটি পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ নয়, আংশিক সূর্যগ্রহণও একে বলা যাবে না। আগামী ২১ জুন যে সূর্যগ্রহণ হবে তাকে বলয়গ্রাস গ্রহণ বলছেন বিশেষজ্ঞরা। ইংরেজিতে এই গ্রহণ পরিচিত অ্যানুলার সোলার একলিপস নামে।

বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এই গ্রহণ দেখা যাবে। এছাড়া এশিয়ার অন্যান্য দেশ, আফ্রিকা এবং ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল থেকে বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার কিছু কিছু অংশ থেকেও রোববারের বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে।

ঢাকার স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ২৩ মিনিটে সূর্যগ্রহণ শুরু হবে। দুপুর ১টা ১২ মিনিটে সূর্যগ্রহণের সর্বোচ্চ পর্যায় ও দুপুর ২টা ৫২ মিনিটে গ্রহণ শেষ হবে। তবে ভারত, পাকিস্তান, চীন, তাইওয়ান ছাড়াও অন্যান্য দেশ থেকে বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা গেলেও বাংলাদেশ থেকে আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে বলে জানিয়েছে অনুসন্ধিৎসু চক্র।

বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ কী?

গ্রহণের সময় আকাশে যখন আগুনের চাকা দেখা যায় তখন তাকে বলে বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ। অর্থাৎ এই গ্রহণে চাঁদের ছায়া সূর্যের ওপর এমনভাবে পড়ে, যাতে সূর্যের চারপাশের আলোর বলয় দেখা যায়। এই গ্রহণে চাঁদের ছায়া সম্পূর্ণভাবে সূর্যকে গ্রাস করতে পারে না। এর আগে ২০১৯ সালের ২৬ ডিসেম্বর শেষবার বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ হয়েছিল।

কীভাবে দেখবেন?

খালি চোখে বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা মোটেও নিরাপদ নয়। এর জন্য বিশেষ আই প্রোটেকশন গিয়ার ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া পিনহোল প্রজেক্টর দিয়ে সাদা দেয়াল বা কাপড়ে গ্রহণের ছায়া ফেলে সেটাও দেখতে পারেন।

অন্য গ্রহণের সঙ্গে পার্থক্য কোথায়?

পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের সময় চাঁদের ছায়া সূর্যকে পরিপূর্ণভাবে ঢেকে ফেলে। তাই এই সময় পৃথিবীতে সম্পূর্ণ অন্ধকার নেমে আসে। আর আংশিক সূর্যগ্রহণে চাঁদের ছায়া সূর্যের কিছুটা অংশ ঢাকতে সক্ষম হয়।

তবে বলয়গ্রাস গ্রহণে অমাবস্যার চাঁদ সূর্যকে মাঝখান থেকে ঢেকে ফেলে। তাই তখন পাশ থেকে আলোর মালা প্রতিভাত হয়। এটি রিং অব ফায়ার নামে পরিচিত। এক্ষেত্রে চাঁদ পৃথিবী থেকে এর দূরতম বিন্দুর কাছাকাছি অবস্থান করে। এই সময় চাঁদ, পৃথিবী ও সূর্য প্রায় সরলরেখায় অবস্থান করে।

RTV Drama
RTVPLUS