মাদক নির্মূলে যিনি ভূমিকা রাখবেন তাকেই ভোট দিবে তরুণরা

প্রকাশ | ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ২১:০১ | আপডেট: ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ২২:০৭

ভৈরব প্রতিনিধি, আল আমিন টিটু

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারাদেশের মতো ভোটের হাওয়া বইছে ভৈরবে। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যারা মাদক নির্মূল ও যুব সমাজের উন্নয়নে কাজ করবে এমন প্রার্থীকেই বেছে নেবে ভৈরববাসী।

তরুণ প্রজন্মের কয়েকজন ভোটার আরটিভি অনলাইনকে বলেন, এবার নির্বাচনে ভৈরবে বড় ফ্যাক্টর নতুন ভোটার। এই তরুণ ভোটাররা যেদিকে মোড় নিবে, সেদিকেই নিশ্চিত বিজয় হবে। আগামী নির্বাচনে যারা দেশ ও যুব সমাজের উন্নয়নে কাজ করবে। দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে যারা ভূমিকা রাখবে। এমন সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকে তারা ভোট দেবে।

এবার নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-৬ আসনে বড় ফ্যাক্টর নতুন ভোটার। ভৈরব ও কুলিয়ারচর উপজেলার দুটি পৌরসভা এবং ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে গঠিত এ আসন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে ভোটার সংখ্যা তিন লাখ ৩২ হাজার ৬৫১ জন। নারী ভোটারের সংখ্যা এক লাখ ৬৩ হাজার ৮৩১ জন। পুরুষ ভোটার এক লাখ ৬৮ হাজার ৮২০ জন। তরুণ ভোটারের সংখ্যা প্রায় ৭০ হাজার। যা শতকরা ২০ শতাংশের বেশি।

তরুণ ভোটারদের প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবির) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, এই প্রজন্ম দেশকে অসম্ভব ভালোবাসে। তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে রায় দেবে। তারা কখনও ভুল করবে না।

বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. শরীফুল আলম বলেন, তরুণ ভোটারদের মৌলিক অধিকার শিক্ষা শেষে চাকরির ব্যবস্থা করা হবে। যুব সমাজের উন্নয়নে কাজ করতে চান বলেও জানান তিনি। আগামী নির্বাচনে তরুণ প্রজন্ম তাকেই বিজয়ী করবে বলে আশাবাদী শরীফুল।

এদিকে ভোটকেন্দ্রে কোনও সংঘাত বা প্রতিবন্ধকতা নয়। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে জীবনের প্রথমবার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চান তরুণরা। বেছে নিবে পছন্দের প্রার্থী। এমনটাই প্রত্যাশা নতুন ভোটারদের।

ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ইসরাত সাদমীন জানান, নির্বাচনের স্বাভাবিক পরিবেশ রয়েছে। ইতিমধ্যে প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারদের ভোটগ্রহণের প্রশিক্ষণ শেষ করা হয়েছে। একটি সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেয়ার লক্ষে কাজ করছেন তিনি।

আরএস/জেবি